বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ কৌশল পরিবর্তন করে বিভিন্ন রায়ের মধ্য দিয়ে আদালতকে ব্যবহার করছে। নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকার বাতিল করে দিয়ে একদলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা করে তারা ক্ষমতায় থাকার বিষয়টি পাকাপোক্ত করেছে।

শনিবার দুপুরে ঠাকুরগাঁওয়ের কালীবাড়িস্থ নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা জনগণের ভোটাধিকার চাই। সে কারণে ৩০শে ডিসেম্বর জনগণের ভোটাধিকার হত্যা দিবস পালন করে আসছি। কারণ সারা বিশ্বই জানে ২৯ ডিসেম্বর রাতে আওয়ামী লীগ ভোটডাকাতি করে সব নিয়ে গেছে। জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করে তারা একদলীয় শাসন ব্যবস্থার লক্ষ্য পূরণ করেছে।

ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের সম্মুখীন হতে পারে না। গণতন্ত্রকে তারা ভয় পায়। অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ভয় পায়, তারা বিরোধীদলীয় নেতানেত্রীর বিরুদ্ধে মামলা-মোকদ্দমা দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চায়। ক্ষমতায় টিকে থাকতে আওয়ামী লীগ সেই গ্রাম্য মোড়লের মতো আবির্ভাব হয়েছে। তাদের কাজই হচ্ছে জনগণকে অস্থির করে রাখা।

চলমান পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন যতদিন আছে ও আওয়ামী লীগ সরকার যতদিন আছে, কোনো নির্বাচন সঠিকভাবে হবে না। এরপরও আমরা নির্বাচনে যাবো। কারণ বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল। শুধু মাত্র জনগণের কাছে যাওয়ার জন্য নির্বাচনে অংশ নেওয়া হচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি এই নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার পরিবর্তন হবে।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপিত তৈমুর রহমান সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু হাসান মো. আব্দুল হান্নান হান্নুসহ জেলা বিএনপির নেতারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here