নিজস্ব প্রতিবেদক: গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী হাসান সরকারের বাসার সামনে থেকে দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমানসহ ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। পরে তাদেরকে টঙ্গী থানা পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। রোববার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে হাসান সরকারের টঙ্গীর বাসায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলন শেষে বের হওয়ার পর তাদের আটক করা হয়।

বিএনপির ১০ নেতাকর্মীকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন টঙ্গী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, মেয়রপ্রার্থী বিএনপি নেতা হাসান উদ্দিন সরকারের বাড়ির সামনে রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তার বাড়ি সংলগ্ন ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে পুলিশের প্রিজনভ্যান পার্কিং করে রাখা হয়েছে। আরো নেতাকর্মীকে আটক করা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

হাসান উদ্দিন সরকারের বাড়ির ভেতরে এই মুহূর্তে অবস্থান করছেন গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনসহ বেশ কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় নেতাকর্মী। ফজলুল হক মিলন জানিয়েছেন, হাসান সরকারের বাসায় সংবাদ সম্মেলন শেষে বের হওয়ার সময় বাসায় সামনে থেকেই নোমানসহ নেতাকর্মীদের আটক করা হয়।

যোগাযোগ করা হলে টঙ্গী মডেল থানার ওসি কামাল হোসেন জানান, একজন সিনিয়র নেতাসহ ১০ জনকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে টঙ্গী থানায় সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর থেকে কোনো ফোনও রিসিভ করছেন না ওসি।

হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের পর গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সকল কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির প্রতিক্রিয়া জানাতেই মূলত এই সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করা হয় বলে জানা গেছে।

আগামী ১৫ মে এই সিটি করপোরেশনে ভোট হওয়ার কথা ছিল। ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ থেকে জাহাঙ্গীর আলম এবং বিএনপি থেকে হাসান উদ্দিন সরকার মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন। তারা সমানে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

অর্থকথা/