নিজস্ব প্রতিবেদক: মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষায় এবার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ পরীক্ষার্থী পাস করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন। গতবছর পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ৩৫। আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৪ হাজার ৭৬১ জন। সেই হিসেবে এবার পাসের হার কমলেও জিপিএ-৫ বেড়েছে ৫ হাজার ৮৬৮ জন। রোববার সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের এই সারসংক্ষেপ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এ সময় বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলাফলের সারসংক্ষেপ দেয়ার পর শিক্ষামন্ত্রী আংশিক ফলাফল প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, দুপুরে সচিবালয়ে বিস্তারিত ফলাফল দেয়া হবে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের তত্ত্বীয় বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা হয় ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ।

এবার সারাদেশে তিন হাজার ৪১২টি কেন্দ্রে মোট ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে ১০ লাখ ২৩ হাজার ২১২ জন ছাত্র ও ১০ লাখ ৮ হাজার ৬৮৭ জন ছাত্রী।

এবার এসএসসিতে পাসের হার ৭৯ দশমিক ৪০। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ৮৪৫ জন। এসএসসিতে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৬ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৮ জন।

এবার মাদ্রাসা বোর্ডে ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ পরীক্ষার্থী পাস করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৩৭১ জন। এবার মাদ্রাসা বোর্ডের অধীন দাখিলে পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫২ জন।

এ ছাড়া কারিগরি বোর্ডে ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ পাস করেছে। এবার কারিগরিতে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১৪ হাজার ৭৬৯ জন।

চট্টগ্রাম বোর্ডে পাসের হার ৭৫ দশমিক ৫০। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ হাজার ৯৪ জন।

সিলেট বোর্ডে পাসের হার ৭০ দশমিক ৪২। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ১৯১ জন।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, ছেলেদের তুলনায় সারাদেশে মেয়েরা ভাল করেছে। আর ১ হাজার ৫৩৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতভাগ পাস করেছে।