জুমআর দিন ক্ষমা মর্যাদা পাওয়ার সহজ আমল ঘোষণা করেছেন বিশ্বনবি। জুমআর দিনের মর্যাদাপূর্ণ এ আমলগুলো কী?

তা জেনে রাখা জরুরী জুমআর নামাজের জন্য তাড়াতাড়ি মসজিদের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করাই এ দিনের প্রধান কাজ।

আজানের সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত মসিজদের দিকে যাওয়ার ব্যাপারে নির্দেশ দিয়েছে স্বয়ং আল্লাহ তাআলা। যারা এ নির্দেশ মেনে প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে গিয়ে প্রথম সারিতে অবস্থান নেবে তাদের জন্য তিন তিন বার মাগফেরাতের দোয়া করেছেন বিশ্বনবি।

হাদিসে এসেছে-
হজরত ইরবাজ ইবনে সারিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রথম কাতারের লোকদের জন্য তিনবার মাগফেরাতের (ক্ষমার) দোয়া করতেন। আর দ্বিতীয় সারির লোকদের জন্য একবার মাগফেরাতের দোয়া করতেন’ (ইবনে মাজাহ, নাসাঈ)

যারা প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে উপস্থিত হতে পারবেন তাদের দ্বারাই সম্ভব প্রথম সারিতে অবস্থান করা। আর তাতে মিলবে দুটি ফজিলত ও মর্যাদা। একটি হলো- প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে যাওয়ার কুরবানির সাওয়াব আর দ্বিতীয়টি হলো আল্লাহর কাছে ক্ষমা লাভ।

কেননা মুমিন মুসলমানের প্রতি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নসিহত ছিল যে, তারা জুমআর দিন প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে যাবে এবং প্রথম কাতারে অবস্থান করবে। আর তাতে মিলবে অসাধারণ সব নেয়ামত ও পুরস্কার।

অন্য হাদিসে এসেছে-
হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণন করেন , রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি জুমআর দিন অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে এমনভাবে গোসল করল যেমন পবিত্রতা অর্জনের জন্য গোসল করে। অর্থাৎ অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে সারা শরীর পানি ঢেলে খুব ভালোভাবে শরীর পরিস্কার করল তারপর প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে গিয়ে পৌঁছল। তাহলে সে যেনো একটি গরু কুরবানি করল। যে ব্যক্তি তারপর ২য় সময়ে গিয়ে পৌঁছল সে যেন একটি শিংওয়ালা দুম্বা কুরবানি করল। তারপর যে ব্যক্তি ৪র্থ সময়ে গিয়ে পৌঁছল সে যেন আল্লাহর রস্তায় একটি ডিম দান করল। তারপর খতিব বা ইমাম যখন খুতবা পড়ার জন্য বের হন; তখন ফেরেশতা মসজিদের দরজা ছেড়ে দিয়ে খুতবাহ শোনেন ও নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে এসে বসেন।’ (বুখারি ও মুসলিম)

হাদিস দুটি প্রথম ওয়াক্তে মসজিদে আসার এবং প্রথম সারিতে বসার ব্যাপারে যেমন গুরুত্ব দেয়া হয়েছে তেমনি এর চমৎকার মর্যাদাপূর্ণ ফজিলতও বর্ণনা করা হয়েছে।

শুধু তা-ই নয়, মানুষ যদি প্রথম কাতারের ফজিলত কত বেশি? তা জানত তবে প্রথম সারিতে বসার জন্য প্রতিযোগিতা ও লটারির সাহায্য নিতো।

হাদিসে এসেছে-
হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘মানুষের প্রথম কাতারের সাওয়াব ও পুরস্কার সম্পর্কে জানা নেই। যদি প্রথম কাতারের সাওয়াব ও পুরস্কারের কথা জানতে পারতো তা হলে প্রথম সারির জন্য লটারির সাহায্য নেয়ার প্রয়োজন হতো।’ (বুখারি ও মুসলিম)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, জুমআর দিনকে গুরুত্ব দেয়া। আগে পবিত্রতা অর্জন করে মসজিদে যাওয়া। প্রথম ওয়াক্তের দিকে লক্ষ্য রাখা এবং মসজিদের প্রথম কাতারে অবস্থান করা।