বাঙালি জীবনে আর যাই হোক ডিম ম্যানেজ করতে খুব বেশি বেগ পোহাতে হয় না। বাসায় খাবার কিছু না থাকলেও অন্তত ডিমটা থাকে। ডিমকে দুর্দিনের বন্ধু বলা চলে। তবে ডিম শুধু যে খাবার হিসেবে ব্যবহার হয় এমন নয়, ডিমের খোসাও বিভিন্ন কাজে লাগে।

ডিমের খোসা দিয়ে যে সব কাজ করা যায়-

থালা-বাসনের পোড়া, চটচটে দাগ তুলতে ডিমের খোসা বেশ কাজে লাগে। ডিমের খোসা চূর্ণ করে বাসন মাজলে বেশ কাজে লাগে।

বাড়িকে পোকামাকড়ের কবল থেকে বাঁচাতে ডিমের খোসা ব্যবহার করতে পারেন। মুহূর্তেই বাড়ি থেকে উধাও হবে পোকামাকড়, তেলাপোকা, টিকটিকি।

রাসায়নিকের বদলেও গাছে ডিমের খোসা ব্যবহার করা যায়। গাছের গোড়ায় গোড়ায় ডিমের খোসা গুঁড়ো করে ছড়িয়ে দিন। দেখবেন পোকামাকড় গাছের ধারে কাছেও ঘেঁষবে না।

জয়েন্ট পেইন কমাতেও ডিমের খোসার কোনও তুলনা নেই। একটি পাত্রে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার নিয়ে সঙ্গে ডিমের খোসার গুঁড়ো মিশিয়ে দিন। ধীরে ধীরে তা ব্যথা জায়গায় লাগান। সপ্তাহখানেকের মধ্যে উপকার মিলবে।

রূপচর্চা করতে ডিমের খোসার গুঁড়া উষ্ণ পানিতে মিশিয়ে গালে লাগান। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

সূত্র- এই সময়