বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদকঃ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও নির্ধারিত সময় ভ্যাট রিটার্ন জমা দিতে হবে। অন্যথায় গুনতে হবে সুদ ও জরিমানা।

করদাতা বা ব্যবসায়ীদের ভোগান্তির কথা বিবেচনায় নিয়ে কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও দেশের সব কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট দফতরসমূহ সব সময় (কার্যদিবস) খোলা থাকবে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) মূসক বাস্তবায়ন ও আইটি সদস্য আব্দুল মান্নান শিকদার স্বক্ষরিত এক আদেশ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে এনবিআরের জনসংযোগ কর্মকর্তা (পরিচালক) সৈয়দ মু’মেন গণমাধ্যমকে বলেন, করদাতাদের সুবিধার কথা বিবেচনায় নিয়ে করোনা মহামারির মধ্যেও দেশের সব কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট দফতরসমূহ খােলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নির্ধারিত তারিখের মধ্যে ভ্যাট দাখিলপত্র দাখিল নিশ্চিত করতে এ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

নতুন জারি করা আদেশে বলা হয়, মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ এবং মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক বিধিমালা ২০১৬ অনুসারে করদাতাদের মাস শেষ হওয়ার অনধিক ১৫ দিনের মধ্যে ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অন্যথায় সুদ ও জরিমানা আরোপের বিধান রয়েছে। এ কারণে ব্যবসায়ীদের মাসিক ভ্যাট দাখিলপত্র দাখিলে সহায়তা করা ও দাখিলপত্র গ্রহণের সুবিধার্থে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধকালে দেশের সব কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট দফতরসমূহ খোলা রয়েছে। করদাতাগণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংশ্লিষ্ট ভ্যাট দফতরে দাখিলপত্র পেশ করতে পারবেন। ওই সময়ে কর্মচারী কর্মকর্তারা করোনা সংক্রান্ত সতর্কতা ও নিরাপত্তামূলক সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করে দাখিলপত্র গ্রহণ ও রাজস্ব আদায় করবেন।

এনবিআরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন গ্রহণ করেছে প্রায় ২ লাখ ৩১ হাজার প্রতিষ্ঠান। যার মধ্যে নিয়মিত ভ্যাট রিটার্ন দাখিল করে ৯৬ হাজার প্রতিষ্ঠান। আর ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভ্যাটি রিটার্ন দাখিল ২০ হাজার থেকে ২২ হাজার প্রতিষ্ঠান।

ঢাকা/এসএ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here