লা লিগায় রিয়াল বেতিসকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। এ জয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে পেছনে ফেলে টেবিলের দুই নম্বরে ওঠে এসেছে কাতালানরা। ২১ ম্যাচে বার্সার সংগ্রহ ৪৩ পয়েন্ট।

স্তাদে বেনিতো ভিয়ামারিনে রিয়াল বেতিসের অতিথি ছিল বার্সেলোনা। কোপা দেলরে’তে গ্রানাদাকে হারানোর সুখস্মৃতি সঙ্গী কাতালানদের। জয়ের ছন্দে আছে কোম্যানের দল। চুক্তি ফাঁসসহ নানা মুখরোচক খবরের তিক্ততা ভুলে মাঠে সৌরভ ছড়াচ্ছেন মেসিও। তবে, প্রতিপক্ষ বেতিস বলেই বাড়তি সতর্ক ছিলেন কোম্যান। কারণ, ফর্মে আছে পেল্লেগ্রিনির শিষ্যরাও। ম্যাচ শুরুর সঙ্গে সঙ্গে কোচের পরামর্শ হারে হারে টের পেয়েছে বার্সা।

কাতালানদের হতাশ করে ৩৮ মিনিটে লিড নেয় বেতিস। গোল করেন বোর্গা ইগলেসিয়াস। প্রথমার্ধে চেষ্টা করেও সমতায় ফিরতে পারেনি বার্সেলোনা। ৫৯ মিনিটে কাতালান সমর্থকদের ভয়কে জয় করেন মেসি। প্রিয় তারকার গোলে উচ্ছ্বাস সমর্থকদের। ৬৮ মিনিটে আবারো উৎসব বার্সা শিবিরে। তবে, এবার নিজেদের কল্যাণে নয়। আত্মঘাতী গোল করেন ভিক্টর রুইজ। লিড পায় বার্সেলোনা।

নিজের ভুলকে ফুলে পরিণত করতে বেশি সময় নেননি রুইজ। ৭৫ মিনিটে নাবিল ফেকিরের ফ্রি কিকে চমৎকার গোল করে বেতিসকে ২-২ গোলের সমতা উপহার দেন ৩২ বছর বয়সী এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার।

ড্র’য়ের পথেই যাচ্ছিল ম্যাচ। তবে, তা হতে দেননি ত্রিনকাও। সমানে সমান লড়াইয়ে ৮৭ মিনিটে ব্যবধান গড়েন ২১ বছর বয়সী পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড। ম্যাচে আর কোনো বিপদ হয়নি। দু’দলের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা শেষ হয় ৩-২ ব্যবধানে। বার্সেলোনা সমর্থকদের মুখে জয়ের হাসি। আর তাতেই খুশি কোম্যান, মেসি।

এদিকে ফরাসি লিগ ওয়ানে অলিম্পিক মার্শেইকে ২-০ গোলে হারিয়েছে পিএসজি।

ম্যাচে অবশ্য এতটা উত্তেজনা ছিল না। অনেকটা একপেশে হয়েছে লড়াই। অরেঞ্জ ভেলোদ্রমে ৯ মিনিটেই পচেত্তিনোর দলকে লিড উপহার দেন ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে।

২৪ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মৌরো ইকার্দি। চেষ্টা করেও সমতা ফেরাতে পারেনি মার্শেই।  গেল ম্যাচে নিমস জয়ের পর, এবার মার্শেইয়ের বিপক্ষে জয় নিয়ে ঘরে ফিরেছে পিএসজি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here