দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মূল্যসূচক ৪ হাজার থেকে বাড়তে শুরু করলে বীমা খাতের শেয়ারে দাপট দেখা গিয়েছিল। যা মাঝে কিছুদিন শীথিল থাকলেও গত কয়েকদনি ধরে এই খাতের কিছু কোম্পানির শেয়ারে অস্বাভাবিক লেনদেন হচ্ছে। যা খতিয়ে দেখতে অনুসন্ধান করছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বাধীন কমিশন শেয়ারবাজারে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বদ্ধ পরিকর। তার কমিশন শেয়ারবাজারে কোন অনিয়মকারীকে ছাড় দিতে নারাজ। যার ফলশ্রুতিতে বিগত কয়েক মাসে তার নেতৃত্বাধীন কমিশন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে অনিয়মের দায়ে প্রায় ৫০ কোটি টাকা জরিমানা করেছে। একইভাবে বীমা খাতের শেয়ারের সাম্প্রতিক উত্থানে যদি কোন অনিয়ম হয়ে থাকে, তাহলে তা আইনের আওতায় আনবে।

বিএসইসির নির্বাহি পরিচালক ও মূখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, গত কয়েকদিন কিছু বীমা কোম্পানির অস্বাভাবিক লেনদেন হয়েছে। যে কারনে কমিশন ওইসব কোম্পানির লেনদেনে কোন অনিয়ম হয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখছে। এক্ষেত্রে কোন অনিয়ম হলে, তা শাস্তির আওতায় আনা হবে।

দেখা গেছে, গত সপ্তাহে (২০-২৪ সেপ্টেম্বর) দর বৃদ্ধিতে শীর্ষ দশে বীমা কোম্পানির আধিপাত্য ছিল। ওই সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি দর বাড়ে ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের। কোম্পানিটির সপ্তাহের ব্যবধানে ৪১.৫৭ শতাংশ দর বাড়ে।

ওই সপ্তাহে টপটেন গেইনার তালিকায় উঠে আসা বীমা খাতের অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রূপালী ইন্স্যুরেন্সের ৩৬.২১ শতাংশ, নিটল ইন্স্যুরেন্সের ৩৩.৩৩ শতাংশ, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ৩১.৫৩ শতাংশ, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ২৭.৮৪ শতাংশ, সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ২৪.৯০ শতাংশ, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ২২.৭১ শতাংশ এবং ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর ২২.০৯ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে গতকাল (২৭ সেপ্টেম্বর) এশিয়া প্যাসিফিক জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের সবচেয়ে বেশি ১০ শতাংশ দর বেড়েছে। গত ৮ সেপ্টেম্বর এ কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল ৩০ টাকা। যা ২৭ সেপ্টেম্বর লেনদেন শেষে বেড়ে দাড়িঁয়েছে ৪৯.৫০ টাকা। এ হিসাবে ১৯ দিনের ব্যবধানে শেয়ারটির দর বেড়েছে ১৯.৫০ টাকা বা ৬৫ শতাংশ।

বিজে/টিআর