যুক্তরাজ্যে স্কটিশ লেবার পার্টির প্রধান হিসেবে একজন মুসলিম নির্বাচিত হয়েছেন। প্রথমবারের মতো কোনো রাজনৈতিক দলের প্রধান হিসেবে নাম লেখানো এই রাজনৈতিকের নাম আনাস সরওয়ার। এক্ষেত্রে তিনি তার পরিবারের পদাঙ্ক অনুসরণ করেছেন।

আনাস যুক্তরাজ্যের একটি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তার বাবা মুহাম্মদ যুক্তরাজ্যের গ্লাসগো সেন্টার থেকে নির্বাচিত প্রথম মুসলিম এমপি। পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের গভর্নর নিয়োগ হওয়ার আগে ১৯৯৭ সালে তিনি গ্লাসগোতে এমপি নির্বাচিত হন।

এখন ছোট সরওয়ার স্কটিশ লেবার পার্টির প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি তার প্রতিদ্বন্ধী মনিকা লেনোনকে  ৫৭%-৪২% ব্যবধানে হারিয়েছেন।

আনাসের জন্ম যুক্তরাজ্যের গ্লাসগোতে। ১৯৮৩ সালে। তার প্রথম রাজনৈতিক স্মৃতি শুরু হয়েছিল তার মায়ের ব্যাপারে ধমকি পাওয়ার মাধ্যমে। শৈশবের সেই দুঃস্হ স্মৃতি স্মরণ করে তিনি বলেন, ১৯৯৭ সালে একটি খাম তার হাতে দেওয়া হয়। যাতে মাথার পেছনে একটি বন্দুক দিয়ে মায়ের একটি বিকৃত ছবি ছিল। তাতে বলা হয়েছিল, ‘বিস্ফোরণ, বিস্ফোরণ, এসব কিছু নেওয়া হবে।’

বর্ণবাদী হুমকি এবং অপপ্রচারের শিকার হওয়া সত্ত্বেও রাজনীতির জগতে প্রবেশের জন্য সরওয়ার ২০১০ সালে ডেন্টিস্টের চাকরি ছেড়ে দেন। লেবার পার্টি ওয়েস্টমিনস্টার আসনে যেখানে আসন খুইয়ে ছিল, একটি নির্বাচনে তিনি সেখানে তার বাবার মতো জয়লাভ করেন।

মাত্র ১৬ বছর বয়সে স্কটিশ লেবার পার্টির সদস্য হন তিনি। তবে পারিবারিক ঐতিহ্য হিসেবে রাজনৈতিক চিন্তা-চেতনা শৈশব থেকেই লালন-পালন করেন। দীর্ঘ ১৩ বছর পর লেবার পার্টি আসনটি ফিরে পেয়েছিল।

এমপি থাকাকালীন সময়ে তার ভেতর নেতৃত্বের গুণ ও দায়িত্বশীলতা প্রকাশ পেয়েছিল। ২০১১ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত স্কটিশ লেবারের ডেপুটি লিডার ছিলেন। পাশাপাশি স্বাধীনতার গণভোটের সময় দলের প্রচারের সমন্বয় হিসেবেও কাজও করেছিলেন।

২০১৪ সালে জোহান ল্যামন্টের পদত্যাগের পরে তিনি ভারপ্রাপ্ত নেতার দায়িত্বও পালন করেন। ২০১৫ সালে তিনি স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টির অ্যালিসন থিউলিসের কাছে নিজের আসন হারান। তবে সীমান্তের উত্তরে এই নির্বাচনী এলাকা ছাড়া বাকি সবকটিতে তার দল জয়লাভ করেছিল।

 

আরও পড়ুন: