গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার জৈনাবাজার আব্দুল আউয়াল কলেজ রোড (আবদার) এলাকায় প্রবাসীর স্ত্রী ও তাদের তিন সন্তানকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় মূল হোতা পারভেজকে (২০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। রবিবার (২৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে আবদার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গাজীপুর পিবিআইয়ের ইন্সপেক্টর হাফিজুর রহমান এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, পারভেজ জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। সে শ্রীপুর উপজেলার আবদার গ্রামের কাজিম উদ্দিনের ছেলে। মা, দুই মেয়ে ও এক ছেলেকে হত্যাকাণ্ডে তার সঙ্গে আরও কয়েকজন অংশ নিয়েছিল বলেও পুলিশকে জানিয়েছে সে।

পিবিআই ইন্সপেক্টর হাফিজুর রহমান আরও জানান, পারভেজকে গ্রেফতারের পর স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে তার ঘর থেকে রক্তমাখা কাপড়, মাটির নিচ থেকে মোবাইল ফোন, পায়জামার পকেট থেকে তিনটি গলার চেইন, কানের দুল ও লুট করা স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) বিকালে শ্রীপুরের জৈনাবাজার এলাকার একটি বাড়ি থেকে মা, দুই মেয়ে ও এক ছেলের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার (২২ এপ্রিল) দিবাগত রাতের কোনও এক সময় দুর্বৃত্তরা তাদের হত্যা করে। তারা হলেন আবদার এলাকার প্রবাসী রেদোয়ান হোসেন কাজলের স্ত্রী ইন্দোনেশিয়ান নাগরিক স্মৃতি আক্তার ফাতেমা (৪৫), তার বড় মেয়ে সাবরিনা সুলতানা নূরা (১৬), ছোট মেয়ে হাওরিন হাওয়া (১২) এবং প্রতিবন্ধী ছেলে ফাদিল (৮)।