দেশের সব সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২০২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিতে ডিজিটাল লটারি আজ সোমবার অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রীয়ভাবে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বেলা সাড়ে তিনটায় এ লটারি কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। অনলাইনে টেলিটকের বিশেষ সফটওয়্যারে এ লটারি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এ লটারি কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। সারা দেশে ৮০ হাজার আসনের বিপরীতে এবার ৫ লাখ ৭৩ হাজার ৩১১টি আবেদন পড়েছে বলে জানা গেছে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউশনে লটারি কার্যক্রম উদ্বোধনের পর বিকেল ৫টা থেকে নির্ধারিত লিংকে (http://gsa.teletalk.com.bd) ফলাফল প্রচার শুরু করা হবে। লটারি কার্যক্রম মাউশির ফেসবুক পেজ http://www.facebook.com/dshe.moebd, ইউটিউব চ্যানেল এবং টেলিভিশন চ্যালেনে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। লটারির ফল আজই সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের মুঠোফোনে টেলিটকের এসএসএমের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। এ ছাড়া লটারিতে বিজয়ীদের তালিকা সংশ্লিষ্ট স্কুলগুলোয় পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

দুই দফায় ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত এবার ভর্তির আবেদন টেলিটকের নির্ধারিত সফটওয়্যারের মাধ্যমে নেওয়া হয়। প্রথম দফায় গত ১৫ থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভর্তি আবেদন নেওয়া হয়েছিল। ৩০ ডিসেম্বর ভর্তি লটারির নির্ধারিত দিন ছিল। তবে নির্ধারিত শ্রেণিতে ভর্তির নির্ধারিত বয়সের চেয়ে কয়েক দিন কম হওয়ার কারণেও বিপুলসংখ্যক ভর্তি–ইচ্ছুক আবেদন করতে পারেনি। এরপর এক শিক্ষার্থীর বাবার রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট গত ২৯ ডিসেম্বর ভর্তি আবেদনের সময় আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে ষষ্ঠ শ্রেণিতে অনলাইনে ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ১১ বছর বয়সের সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া শর্তটিও স্থগিত করেন হাইকোর্ট। ফলে ১১ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থীদেরও ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে আর কোনো বাধা রইল না। উচ্চ আদালতের এ আদেশের পর সেদিনই ভর্তি লটারি স্থগিত ঘোষণা করে মাউশি। পরে আবেদনের সময় আরও সাত দিন বাড়িয়ে ১ থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত আবেদন নেওয়া হয়।

 

 

 

 

 

 

লটারি যেভাবে হবে

সারা দেশের লটারি সফটওয়্যারের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে হবে। শিক্ষামন্ত্রী উদ্বোধনের পর লটারি শুরু হবে। প্রথমে রাজধানীর স্কুলগুলো, এরপর পর্যায়ক্রমে মহানগরী, জেলা ও উপজেলা শহরের সব মিলিয়ে ৩৯০টি স্কুলে লটারি হবে। লটারির কার্যক্রম অনলাইনে প্রচার করা হবে। এ ছাড়া স্কুল কর্তৃপক্ষ তার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে এ লটারি দেখতে পারবে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা স্কুলে গিয়ে তা দেখার সুযোগ পাবেন।

লটারির ফলাফল তাৎক্ষণিকভাবে টেলিটক ও সফটওয়্যারের মাধ্যমে নিজ নিজ স্কুলের মেইলে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। নির্ধারিত লিংকে গিয়ে প্রতিষ্ঠান সেটি প্রিন্ট করে স্কুলের নোটিশ বোর্ডে টাঙিয়ে দেবে। এবারও স্কুলগুলোকে তিনটি গুচ্ছ বা গ্রুপ (এ, বি এবং সি) করে ভর্তির কাজটি করা হবে। ভর্তি আবেদনের সময় একজন শিক্ষার্থী একটি গুচ্ছের পাঁচটি বিদ্যালয়ে ভর্তির পছন্দক্রম দিতে পেরেছে।
মাউশির মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুকের সভাপতিত্বে লটারি কার্যক্রম অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত থাকবেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহবুব হোসেন প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here