পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস (আরএসআরএম) কর্তৃপক্ষ ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৫ কোটি ৬১ লাখ টাকার আয় বেশি দেখিয়েছে বলে নিরীক্ষকের পর্যবেক্ষনে উঠে এসেছে। এ নিয়ে নিরীক্ষক আপত্তিকর মন্তব্য (কোয়ালিফাইড ওপিনিয়ন) জানিয়েছে।

এদিকে আর্থিক হিসাবে কোম্পানি কর্তৃপক্ষের দেখানো ১৮৪ কোটি ৬০ লাখ টাকা মজুদ পণ্যের সত্যতা যাচাইয়ে পর্যাপ্ত প্রমাণাদি পায়নি বলে জানিয়েছেন নিরীক্ষক।

এ কোম্পানিটির বিভিন্ন গ্রাহকের কাছে বাকিতে বিক্রির কারণে টাকা পাওনা রয়েছে। তবে এরমধ্যে কিছু গ্রাহকের কাছে দীর্ঘদিন ধরে ২৫ কোটি ৫২ লাখ টাকার পাওনা রয়েছে। যা কোম্পানির হিসাব থেকে বাদ দেওয়া উচিত বলে মনে করেন নিরীক্ষক।

কোম্পানির সঙ্গে সম্পৃক্ত বা জড়িতদের (রিলেটেড পার্টি) সঙ্গে লেনদেনের তথ্য আর্থিক হিসাবে প্রকাশ করা হয়নি বলে জানিয়েছে নিরীক্ষক।

উল্লেখ্য, আরএসআরএম স্টিল ২০১৪ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ওইসময় কোম্পানিটি ৩০ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ার ৪০ টাকা করে ইস্যুর মাধ্যমে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। এখন শেয়ারটি ২২.৯০ টাকায় লেনদেন হচ্ছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির প্রথম ৩ বছর আরএসআরএম স্টিল শেয়ারহোল্ডারদের ২০ শতাংশ বা বেশি হারে ডিভিডেন্ড দিলেও শেষ ২ অর্থবছর ১২ শতাংশ করে দিয়েছে। যা সর্বশেষ ২০১৯-২০ অর্থবছরের ব্যবসায় ১০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।