স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে শুক্রবার বাংলাদেশ সফরে আসছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এসময় ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার আরও ১২ লাখ ডোজ বাংলাদেশের জন্যে মোদি উপহার হিসেবে আনবেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশিদ আলম।

বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, সরকারিভাবে করোনার টিকার এই ১২ লাখ ডোজ সম্পর্কে আমাদের জানানো হয়েছে।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন:বিজনেসজার্নালবিজনেসজার্নাল.বিডি

ভারত সরকার এর আগেও ২০ লাখ ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা উপহার হিসেবে দিয়েছিল বাংলাদেশকে।এটিও ছিল সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা, যা তারা বাজারজাত করছে কোভিশিল্ড নামে।

ভারতে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শিগগির তাদের অভ্যন্তরীণ চাহিদা বাড়ার সম্ভাবনা থাকায় তারা টিকা রপ্তানি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বিষয়ে অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশিদ আলম বলেন, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা রপ্তানি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার ঘোষণা আমাদের দেশেও প্রভাব ফেলবে। আমরা এখন প্রথম ডোজ দেওয়া বন্ধ রেখে ৮ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু করতে পারি। 

সেরাম ইনস্টিটিউটের কাছ থেকে তিন কোটি ডোজ করোনার টিকা কিনতে গত বছর নভেম্বরে যে চুক্তি হয়েছিল, তার মধ্যে দুই চালানে ৭০ লাখ ডোজ ইতোমধ্যে বাংলাদেশ হাতে পেয়েছে।

টিকার প্রথম চালান হাতে পাওয়ার পর গত ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে গণ টিকাদান শুরু হয়। প্রায় দেড় মাসে ৫০ লাখের বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে, যা মোট জনসংখ্যার ৩ শতাংশের মত।

বিজনেসজার্নাল/ঢাকা/টিআর

 

আরও পড়ুন: