বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক: ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিদেশে অর্থ পাঠানোর সুযোগ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ফলে এখন থেকে অনুমোদন ছাড়াই চলতি হিসাবের যৌক্তিক ব্যয় বাবদ বছরে ১০ হাজার মার্কিন ডলার বিদেশে পাঠাতে পারবেন ই-ক্যাব সদস্যরা।

রোববার (২ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, বাৎসরিক কোটা সীমার মধ্য থেকে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মনোনীত কর্মকর্তার নামে দুই হাজার মার্কিন ডলারের আন্তর্জাতিক ক্রেডিট ও প্রিপেইড কার্ড ইস্যু করতে পারবে। কার্ডে পুনরায় বৈদেশিক মুদ্রার অর্থ রাখা যাবে। তবে কার্ডের মাধ্যমে এবং প্রচলিত ব্যাংকিং ব্যবস্থার আওতায় বিদেশে প্রেরিত অর্থের পরিমাণ কোনো অবস্থাতেই ১০ হাজার মার্কিন ডলারের বেশি হতে পারবে না।  

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: বিজনেসজার্নালবিজনেসজার্নাল.বিডি

সার্কুলারে বাৎসরিক কোটার আওতায় বিদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণের ক্ষেত্রে বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন বিধিবিধান, করাদি/ভ্যাট কর্তন ও জমা, ই-ক্যাবের সুপারিশসহ বিষয়গুলো পরিপালনের জন্য অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলোকে বলা হয়েছে।

অর্থ পাঠানোর সুযোগ দেওয়ার ঘোষণার প্রশংসা করে ই-কমার্স পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর বলছে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বৈদেশিক ব্যয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়াই বিদেশে প্রেরণ করা যাবে। ফলে সংশ্লিষ্ট ব্যয় প্রেরণে কোনো ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না।

ঘোষিত নীতিমালার বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট জানান, বৈদেশিক লেনদেন ব্যবস্থা প্রতিনিয়ত সময়োপযোগী করা হচ্ছে। রেমিট্যান্স সুবিধার ফলে ই-কমার্স ব্যবসায়িক কার্যক্রম সহজ হবে।

২০১৫ সালে ই-ক্যাব এর যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে ই-ক্যাবের সদস্য প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৭০০।

ঢাকা/এনইউ

আরও পড়ুন: