বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদকঃ শেয়ারবাজারে ব্যাংক খাতে তালিকাভুক্ত ৩১টি ব্যাংকের মধ্যে ১৫টি ব্যাংক শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ৩৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা দিয়ে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ইস্টার্ন ব্যাংক। আর ৩০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক এবং ২৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে উত্তরা ব্যাংক। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য এ ডিভিডেন্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যাংকগুলোর পরিচালনা বোর্ড।

এদিকে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ডিভিডেন্ড ঘোষণা করা ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম ডিভিডেন্ড ঘোষণা দিয়ে আইএফআইসি ব্যাংক। আর লোকসানের কারণে শেয়ারহোল্ডারদের কোনো ডিভিডেন্ড দেয়নি আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক।

এর আগে গত ১৬ মার্চ ব্যাংকের ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের বিপরীতে পর্যাপ্ত মূলধন রয়েছে, সেসব ব্যাংক সর্বোচ্চ সাড়ে ১৭ শতাংশ ক্যাশসহ মোট ৩৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করতে পারবে বলে সার্কুলার জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই সার্কুলারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ব্যাংকগুলো শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড প্রদান করেছে।
তথ্য মতে, ইস্টার্ন ব্যাংক ৩৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১৭.৫ শতাংশ ক্যাশ ও ১৭.৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ৩০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১৫ শতাংশ ক্যাশ ও ১৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

উত্তরা ব্যাংক ২৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১২.৫ শতাংশ ক্যাশ ও ১২.৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

সিটি ব্যাংক ২২.৫০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১৭.৫০ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

প্রিমিয়ার ব্যাংক ২০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১২.৫ শতাংশ ক্যাশ ও ৭.৫০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড

যমুনা ব্যাংক ১৭.৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

প্রাইম ব্যাংক ১৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক ১৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১০ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

ব্র্যাক ব্যাংক ১৫ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ১০ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ১২ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ৭ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

ওয়ান ব্যাংক ১১.৫০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ৬ শতাংশ ক্যাশ ও ৫.৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড।

ব্যাংক এশিয়া ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

পূবালি ব্যাংক ১২.৫০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

আইএফআইসি ব্যাংক ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক কোনো ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেনি।

বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত সকল  কোম্পানির মধ্যে ব্যাংকের আর্থিক হিসাব অনেকটাই স্বচ্ছ। আর এ খাত থেকে প্রতিবছর শেয়ারহোল্ডারদের ভালো ডিভিডেন্ড দেওয়া হয়। ভালো ডিভিডেন্ড প্রদানের ধারাবাহিকতা এ বছরও বহাল রয়েছে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে শেয়ারবাজারে অন্যান্য খাতের তুলনায় ব্যাংক খাত এখনো বিনিয়োগযোগ্য। লভ্যাংশের তুলনায় ব্যাংকের চেয়ে কম দামে অন্য কোন শেয়ার নেই বললেই চলে।

ঢাকা/এনইউ