ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট পুরোপুরি বাতিল করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ভবিষ্যতে সহিংসতা ছড়ানোর ঝুঁকি থাকায় এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনার জেরে তার টুইটার ১২ ঘণ্টার জন্য জন্য স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ।

টুইটারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্টের অ্যাকাউন্টের পোস্ট পর্যালোচনা করেই বাতিল করা হয়েছে। টুইটারে ট্রাম্পের অনেক ফলোয়ার রয়েছেন। এর আগে তাকে সতর্কও করা হয়।

@realDonaldTrump account বাতিলের কিছুক্ষণের মধ্যেই ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অফিসিয়াল’- পটাস (US president’s official @Potus) থেকে পোস্ট করেন ট্রাম্প। এক প্রতিক্রিয়া ট্রাম্প জানান, ‘আমরা চুপ থাকব না।’ 

ট্রাম্প বলেন, ‘আমাদের কণ্ঠরোধ করে দেওয়ার প্রচেষ্টায় টুইটার আরো একধাপ এগিয়ে গেল। টুইটারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ডেমোক্র্যাট এবং বামপন্থিদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে এই কাজ করেছে। তবে আমরা চুপ করে বসে থাকব না। স্বাধীন মতপ্রকাশে টুইটার এখন সঠিক জায়গা নয়। এমন পর্যায়ে চলে যাচ্ছে, যেখানে দুষ্টু লোকদের নির্দ্বিধায় কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে।’

গত বুধবার মার্কিন আইনসভা ভবন বা ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প–সমর্থকদের ন্যক্কারজনক হামলার পর পাঁচজন মারা যান। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এ হামলা নজিরবিহীন। এ হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রে তো বটেই, বিশ্বজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। মার্কিন আইনপ্রণেতাদের অনেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ট্রাম্পের বিদ্বেষমূলক প্রচার বন্ধের আহ্বান জানান। এমনকি গত বৃহস্পতিবার সাবেক মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা টুইট করে ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট একেবারে বন্ধ করে দেওয়ার আহ্বান জানান।

ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্টের ফলোয়ার সংখ্যা ছিল আট কোটি ৮০ লাখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here