পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের মুনাফায় ব্যপক উল্লম্ফন হয়েছে। গত বছরের তুলনায় সদ্য সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৩ টাকা ৯৩ পয়সা বা ১২১ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

কোম্পানি সূত্র মতে, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ সমাপ্ত অর্থবছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা পরিচালনা পর্ষদ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ৩২ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে সাড়ে ২৪ শতাংশ নগদ এবং সাড়ে ৭ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ। এ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭ টাকা ১৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ইপিএস ছিলো ৩ টাকা ২৩ পয়সা। এ হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৩ টাকা ৯৩ পয়সা বা ১২১ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

কোম্পানির সূত্র মতে, তিন কারণে কোম্পানির মুনাফা বেড়েছে। কারণ তিনটি হলো বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) অ্যাজেন্ট কমিশনে লাগাম টানা, সদ্য সমাপ্ত বছরে ক্লেইম কম হওয়া এবং ম্যানেজমেন্ট ফি কমানো।

এর মধ্যে গত বছরের তুলনায় এ বছর অ্যাজেন্ট কমিশন কমেছে ৩৪ শতাংশ,সদ্য সমাপ্ত বছরে ক্লেইম কম হয়েছে ৩১ শতাংশ এবং ম্যানেজমেন্ট ফি কমানো হয়েছে ১৮ শতাংশ।

এ বিষয়ে কোম্পানি সচিব ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মঈনউদ্দিন আহমেদ সানবিডিকে বলেন, বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ)  উদ্যোগ এবং কোম্পানি কর্তৃপক্ষে নিরলস প্রচেষ্টার কারণে আমাদের আয় বড় ধরণের উন্নতি হয়েছে। তিনি বলেন, কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের বেতন-ভাতা ছাড়া সব ধরনের ব্যবস্থাপনা ব্যয় কমিয়েছে কোম্পানি। অন্যদিকে আইডিআরএ উদ্যোগের কারণে অ্যাজেন্ট কমিশন কমেছে অনেক। ফলে আমাদের মুনাফা আগের তুলনায় বেড়েছে।

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স ১৯৮৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকভুক্ত হয়। বর্তমানে কোম্পানিটি ‘এ’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন করছে।

কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৩৩ দশমিক ৮০ শতাংশ রয়েছে পরিচালকদের কাছে, ২০ দশমিক ৩৬ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, ৮ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে। এছাড়া ৩৭ দশমিক ৮৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here