বিজনেস জার্নাল ডেস্ক: অভিমান হয়েছে অমিতাভ বচ্চনের! নেটাগরিকদের অভিযোগ, সারাক্ষণ নেটমাধ্যমে সক্রিয় থাকা ছাড়া তিনি নাকি আর কিছুই করছেন না! নেটাগরিকদের এই অভিযোগ দীর্ঘদিনের। যদিও অমিতাভ এত দিন এই অভিযোগের কোনও জবাব দেননি। চুপচাপ সব কিছু হজম করেছেন। সোমবার যেন নতুন করে জেগে উঠলেন পর্দার ‘রাগী যুবক’। দিল্লির ‘শ্রী গুরু তেগ বাহাদুর কোভিড কেয়ার সেন্টার’-এ ২ কোটি টাকা দানের পরেই সামনে আনলেন তার গত ১ বছরের দানের হিসাব!

কী বলছে সেই দানের তালিকা? গত ১ বছর ধরে কী পরিমাণ দান করেছেন তিনি?

‘শাহেনশা’-র দেওয়া হিসাব বলছে, গত বছর তিনি এবং তার পরিবার সর্বপ্রথম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন কোভিডে বিপর্যস্ত দিনমজুরদের দিকে। টানা ১ মাস দেশের ৫ হাজার শহরে ছড়িয়ে থাকা ৪ লক্ষ শ্রমিকের ২ বেলার অন্ন সংস্থানের ভার নিয়েছেন তিনি। এখানেই শেষ নয়। প্রশাসন এবং চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের পিপিই কিটের বন্দোবস্তও করা হয়েছিল অমিতাভের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে। অতিমারি রুখতে সক্রিয় শিখ জনসেবা সংগঠনকে দানের পাশাপাশি বহু পরিযায়ী শ্রমিকের ঘরে ফেরার ব্যবস্থাও করেছিলেন অমিতাভ। তাদের যাতায়াতের জন্য বাসের ব্যবস্থাও করে দিয়েছিলেন।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

শুধু বাস নয়, যাতায়াতের সুবিধার্ধে গোটা একটি ট্রেনের বন্দোবস্তও করে দিয়েছিলেন তিনি। যে ট্রেনে এক সঙ্গে ২৮০০ যাত্রী যাতায়াত করতে পারেন। আচমকাই করোনার প্রকোপ বাড়ায় ট্রেনটি যে রাজ্যে যাচ্ছিল, সেই রাজ্যের সরকার সেটি বন্ধ করে দেয়। সঙ্গে সঙ্গে তিনি ট্রেনের পরিবর্তে ৪টি বেসরকারি বিমান ভাড়া করে দেন। যে বিমানে চড়ে বিহার, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান এবং জম্মু ও কাশ্মীরে নিজেদের বাড়ি ফিরে গিয়েছেন শ্রমিকেরা।

এর পরেই গতকাল রাজধানীর শিখ গুরুদ্বার ব্যবস্থাপক সমিতির সভাপতি মনজিন্দর সিং সিরসা জানান, অর্থের পাশাপাশি অমিতাভ অক্সিজেন সিলিন্ডারেরও ব্যবস্থা করে দেবেন বলে জানিয়েছেন। ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট এই সেন্টারে করোনা রোগীর চিকিৎসা হবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। সংবাদমাধ্যম সূত্রে আরও খবর, ২ অনাথ শিশুকেও নাকি দত্তক নিয়েছেন বচ্চন পরিবার। তাদের মা-বাবার মৃত্যু হয়েছে কোভিডে।

১ বছর পরে দানের হিসাব দিতে গিয়ে প্রতি পদে লজ্জিত তিনি, এমনটাই জানিয়েছেন বিগ বি। তার আফসোস, ‘‘ছোট থেকে শিখেছি, দান করে তা সবার সামনে প্রচার করতে নেই। এতে যিনি দিচ্ছেন এবং যাকে দিচ্ছেন, উভয়েই ছোট হয়ে যান।’’ প্রবীণ অভিনেতার দাবি, সময় বদলেছে। এখন সামান্য কিছু করেই তা প্রচার করতে হয়। লোককে জানাতে হয়। না হলেই সবাই ভাবেন, কিছু না করে কেবল বড় বড় কথার চাষ চলছে।

ঢাকা/এনইউ

আরও পড়ুন: