পতনের বাজারেও ‘আকাশ ছোঁয়া’ লোকসানি কোম্পানির শেয়ার দর!

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক: সারাদেশে এলাকা ভিত্তিক লোড শেডিংসহ নানা ইস্যুতে ঘোষণা নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে দেশের শেয়ারবাজারে। লোড শেডিং ঘোষণার দিন বড় পতন হয়েছে শেয়ারবাজারে। পতনের ধারাবাহিকতা মঙ্গলবারও (১৯ জুলাই) অব্যাহত ছিল। এদিন সূচকের বড় পতনের পাশাপাশি অধিকাংশ সিকিউরিটিজের দর কমেছে। কমেছে টাকার পরিমাণে লেনদেনও। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টাকার পরিমাণে লেনদেন সাড়ে ১৫ মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম হয়েছে। তবে পতনের এ বাজারেও  থামছে না স্বল্পমূলধনী ও বছরের পর বছর লোকসানে থাকা কোম্পানির দৌরাত্ম্য।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

গত কয়েক দিনের ধারাবাহিকতায় দর বৃদ্ধির তালিকার বেশিরভাগই জাঙ্ক শেয়ারের দখলে। ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিআইএফসির দর বেড়েছে সবচেয়ে বেশ ৮ দশমিক ২১ শতাংশ। আগের দিনও দর বেড়েছিল ৮ দশমিক ৯৬ শতাংশ।

ধারাবাহিক লোকসানে থাকা কোম্পানিটিকে ২০১৭ সালে শেয়ার প্রতি ৬৯ টাকা ৫৫ পয়সা লোকসান গুনতে হয়েছিল। এর পর আর কোনো তথ্য নেই ডিএসইর ওয়েবসাইটে।

এর পরেই সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে মিথুন নিটিংয়ের, দর বেড়েছে ৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ। রোববার দর বৃদ্ধির শীর্ষে, সোমবার তৃতীয় স্থানে ছিল জেড ক্যাটাগরির কোম্পানিটির। ধারাবাহিকভাবে দর বাড়লেও কোম্পানিটি উৎপাদনে নেই ২০১৭ সাল থেকে। সম্প্রতি এটি নিলামে বিক্রি হয়ে গেছে। আগের দিন ১৮ টাকা ৩০ পয়সায় লেনদেন হওয়া শেয়ারটির বর্তমান দর ১৯ টাকা ৫০ পয়সা।

তৃতীয় সর্বোচ্চ দর বেড়েছে লোকসানি আরামিট সিমেন্ট। ২০১৬ সালে ১২ শতাংশ নগদ প্রদানের পর বিনিয়োগকারীদের আর লভ্যাংশ দিতে পারেনি। চার বছর পর গত বছর শেয়ার প্রতি ৬০ পয়সা আয় করলেও কোনো লভ্যাংশ দেয়নি। তবে চলতি অর্থবছরে বড় লোকসানে থাকলেও অন্তর্বর্তী লভ্যাংশ দিয়েছে।

৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩৪ টাকা ২০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিটি তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত ১০ টাকার শেয়ার প্রতি লোকসান দিয়েছে ৭ টাকা ৬২ টাকা।

চতুর্থ স্থানে থাকা এইচ আর টেক্সটাইল লিমিটেডের দর ৪ দশমিক ৫২ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ১০৬ টাকা ২০ পয়সায় প্রতিটি শেয়ার হাতবদল হয়েছে।

পঞ্চম স্থানে থাকা কেডিএস অ্যাক্সেসরিজের দর বেড়েছে ৪ দশমিক ০১ শতাংশ।

ষষ্ঠ স্থানে থাকা সাভার রিফ্যাক্টরিজের লভ্যাংশ দেয়ার কোনো ইতিহাস নেই। এই কোম্পানির দর ৯ টাকা ৫০ পয়সা বেড়ে হয়েছে ২৫৫ টাকা ৭০ পয়সা।

দর বৃদ্ধির শীর্ষ তালিকায় রয়েছে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, ড্যাফোডিল কম্পিউটার্স লিমিটেড ও আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

এদিকে দরপতনের সর্বোচ্চ সীমায় লেনদেন করেছে দুই শতাধিক কোম্পানি। দর পতনের শীর্ষে রয়েছে জি কিউ বলপেন, বিডি ল্যাম্পস ও রহিমা ফুডের। তিনটি দুটি কোম্পানির দরই কমেছে ২ শতাংশ করে।

শীর্ষ তালিকায় ২ শতাংশ বা কাছাকাছি দর কমেছে কে অ্যান্ড কিউ, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস, লিবরা ইনফিউশন, সী পার্ল বীচ, রেনউইক যজ্ঞেশর, ইস্টার্ন ও সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের।

দরপতনের সর্বোচ্চ সীমা ২ শতাংশ নির্ধারিত থাকায় ১০ টাকার নিচের শেয়ারের দর এক দিনে ১০ পয়সার বেশি কমতে পারে না। ১০ থেকে ১৫ টাকার নিচের শেয়ার কমতে পারে ২০ পয়সা, ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকার নিচের শেয়ার কমতে পারে ৩০ পয়সা, ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকার নিচের শেয়ার কমতে পারে ৪০ পয়সা।

এভাবে দুই শরও বেশি কোম্পানির দর এই দরপতনের সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে লেনদেন শেষ করেছে।

ঢাকা/এসআর