০২:৩৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩

প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা প্রবর্তন করেছেন: ডিএসইর চেয়ারম্যান

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক:
  • আপডেট: ০৫:৩৮:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০২৩
  • / ৪১৯১ বার দেখা হয়েছে

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা প্রবর্তন করেছেন৷ বর্তমানে বাংলাদেশের সামনে হাতছানি দিচ্ছে স্মার্ট বাংলাদেশ৷ ২০৪১ সালের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করা হবে এবং এর মাধ্যমে বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বের একটি দেশে পরিণত হবে৷ ইতোমধ্যে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে পদার্পণ করেছি৷ সরকারের এই মিশন বাস্তবায়নের জন্য রাষ্ট্রের সরকারি ও বেসরকারি হাজারো প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কার্যকর ভূমিকা অনস্বীকার্য৷ স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য দক্ষ মানবসম্পদ ও শিক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তন আনতে হবে৷ নতুন নতুন উদ্ভাবন ও গবেষণার মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে৷

আজ সোমবার (২০ নভেম্বর) ই-গভর্ন্যান্স ও উদ্ভাবন কর্ম-পরিকল্পনা ২০২৩-২৪ বাস্তবায়নের অংশহিসেবে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক আয়োজিত  “শিক্ষা, গবেষণা ও উদ্ভাবন” শীর্ষক কর্মশালায় বিশেষজ্ঞ আলোচক হিসেবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু এসব কথা বলেন৷

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মোঃ সাজ্জাদ হোসেন৷ এতে সভাপতিত্ব করেন ইউজিসি’র রিসার্চ সাপোর্ট এন্ড পাবলিকেশন ডিভিশন-এর পরিচালক ড. মোঃ ফখরুল ইসলাম৷

ড. হাসান বাবু আরো বলেন, সমাজের কোনো সমস্যা অনুধাবন ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির একমাত্র উপযুক্ত মাধ্যম হলো গবেষণা৷ গবেষণা হলো তথ্য বিন্যস্তকরণ ও নতুন সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য উপকরণ৷ গবেষণার মাধ্যমে সামাজিক অস্থিরতা, বিশৃঙ্খলা দূর করে একটি জাতিকে তার কাঙ্ক্ষিত সাফল্যে পৌঁছানো সম্ভব৷ গবেষণার মাধ্যমে সৃষ্ট জ্ঞান, চিন্তা ও আবিষ্কার একটি জাতিকে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছে দিতে পারে৷ গবেষণাই পারে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সমস্যা সম্পর্কে জানা এবং সমাধানের পথ বের করা৷ অধিক গবেষণা নির্ভর দেশগুলো বেশি সমৃদ্ধশালী৷ স্মার্ট বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনের কোন বিকল্প নেই৷ দেশের দীর্ঘমেয়াদি সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নের মাধ্যমে বহু-মাতৃক কর্মপরিকল্পনা ও কর্মকৌশল গ্রহণ করেছে সরকার৷ এই বাস্তবতায় চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বিজয়ের লক্ষ্যে সরকারের মিশন হচ্ছে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলা৷

উদ্ভাবন নিয়ে ড. হাসান বাবু বলেন, ছোট পরিবর্তন থেকেও বৃহত পরিবর্তন আনা সম্ভব৷ ছোট প্রকল্প বা আইডিয়াগুলোকে বের করার মাধ্যমেই বড় বড় প্রকল্প গড়ে তোলা যেতে পারে৷ ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনার নেয়া হয়েছে৷ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য অবশ্যই বৃহত্তর পরিসরে উদ্ভাবন নিয়ে কাজ করতে হবে৷ ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে প্রয়োজন হবে উদ্যোক্তাদের উদ্ভাবনী চিন্তা৷ শিক্ষা, গবেষণা এবং উদ্ভাবন এই ৩টি জিনিসের সমন্বয় ঘটিয়ে স্মার্ট, সমৃদ্ধ এবং সুষম বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে হবে৷

আরও পড়ুন: মার্কেন্টাইল ব্যাংক পারপেচ্যুয়াল বন্ডের লেনদেনের তারিখ নির্ধারণ

পরিশেষে, তিনি বলেন, ২০২৪ সালের নির্বাচনের জন্য স্মার্ট বাংলাদেশকে সামনে রেখে যে ইশতেহার প্রণয়ন করা হবে সেখানে আমরা সমগ্র বিশ্বকে দেখাতে চাই বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তিতে ও উন্নয়নে পিছিয়ে নেই, বাংলাদেশ আজ চিন্তা করছে কিভাবে উন্নত বিশ্বের দোড়গোড়ায় পৌঁছানো যায়৷

ঢাকা/এসএ

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

English Version

প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা প্রবর্তন করেছেন: ডিএসইর চেয়ারম্যান

আপডেট: ০৫:৩৮:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০২৩

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা প্রবর্তন করেছেন৷ বর্তমানে বাংলাদেশের সামনে হাতছানি দিচ্ছে স্মার্ট বাংলাদেশ৷ ২০৪১ সালের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করা হবে এবং এর মাধ্যমে বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বের একটি দেশে পরিণত হবে৷ ইতোমধ্যে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে পদার্পণ করেছি৷ সরকারের এই মিশন বাস্তবায়নের জন্য রাষ্ট্রের সরকারি ও বেসরকারি হাজারো প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কার্যকর ভূমিকা অনস্বীকার্য৷ স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য দক্ষ মানবসম্পদ ও শিক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তন আনতে হবে৷ নতুন নতুন উদ্ভাবন ও গবেষণার মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে৷

আজ সোমবার (২০ নভেম্বর) ই-গভর্ন্যান্স ও উদ্ভাবন কর্ম-পরিকল্পনা ২০২৩-২৪ বাস্তবায়নের অংশহিসেবে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক আয়োজিত  “শিক্ষা, গবেষণা ও উদ্ভাবন” শীর্ষক কর্মশালায় বিশেষজ্ঞ আলোচক হিসেবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু এসব কথা বলেন৷

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মোঃ সাজ্জাদ হোসেন৷ এতে সভাপতিত্ব করেন ইউজিসি’র রিসার্চ সাপোর্ট এন্ড পাবলিকেশন ডিভিশন-এর পরিচালক ড. মোঃ ফখরুল ইসলাম৷

ড. হাসান বাবু আরো বলেন, সমাজের কোনো সমস্যা অনুধাবন ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির একমাত্র উপযুক্ত মাধ্যম হলো গবেষণা৷ গবেষণা হলো তথ্য বিন্যস্তকরণ ও নতুন সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য উপকরণ৷ গবেষণার মাধ্যমে সামাজিক অস্থিরতা, বিশৃঙ্খলা দূর করে একটি জাতিকে তার কাঙ্ক্ষিত সাফল্যে পৌঁছানো সম্ভব৷ গবেষণার মাধ্যমে সৃষ্ট জ্ঞান, চিন্তা ও আবিষ্কার একটি জাতিকে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছে দিতে পারে৷ গবেষণাই পারে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সমস্যা সম্পর্কে জানা এবং সমাধানের পথ বের করা৷ অধিক গবেষণা নির্ভর দেশগুলো বেশি সমৃদ্ধশালী৷ স্মার্ট বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনের কোন বিকল্প নেই৷ দেশের দীর্ঘমেয়াদি সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নের মাধ্যমে বহু-মাতৃক কর্মপরিকল্পনা ও কর্মকৌশল গ্রহণ করেছে সরকার৷ এই বাস্তবতায় চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বিজয়ের লক্ষ্যে সরকারের মিশন হচ্ছে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলা৷

উদ্ভাবন নিয়ে ড. হাসান বাবু বলেন, ছোট পরিবর্তন থেকেও বৃহত পরিবর্তন আনা সম্ভব৷ ছোট প্রকল্প বা আইডিয়াগুলোকে বের করার মাধ্যমেই বড় বড় প্রকল্প গড়ে তোলা যেতে পারে৷ ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনার নেয়া হয়েছে৷ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য অবশ্যই বৃহত্তর পরিসরে উদ্ভাবন নিয়ে কাজ করতে হবে৷ ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে প্রয়োজন হবে উদ্যোক্তাদের উদ্ভাবনী চিন্তা৷ শিক্ষা, গবেষণা এবং উদ্ভাবন এই ৩টি জিনিসের সমন্বয় ঘটিয়ে স্মার্ট, সমৃদ্ধ এবং সুষম বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে হবে৷

আরও পড়ুন: মার্কেন্টাইল ব্যাংক পারপেচ্যুয়াল বন্ডের লেনদেনের তারিখ নির্ধারণ

পরিশেষে, তিনি বলেন, ২০২৪ সালের নির্বাচনের জন্য স্মার্ট বাংলাদেশকে সামনে রেখে যে ইশতেহার প্রণয়ন করা হবে সেখানে আমরা সমগ্র বিশ্বকে দেখাতে চাই বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তিতে ও উন্নয়নে পিছিয়ে নেই, বাংলাদেশ আজ চিন্তা করছে কিভাবে উন্নত বিশ্বের দোড়গোড়ায় পৌঁছানো যায়৷

ঢাকা/এসএ

Print Friendly, PDF & Email