কঠোর গোপনীয়তার নীতির কারণে গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয় হোয়াটসঅ্যাপ। তবে আগের মতো গোপনীয়তা নীতি থাকছে না হোয়াটসঅ্যাপে। 

হোয়াটসঅ্যাপ এমন এক নীতি গ্রহণ করছে এখানে অ্যাকাউন্ট রাখতে হলে গ্রাহককে বাধ্যতামূলকভাবে ফেসবুকে তাদের তথ্য শেয়ার করতে হবে। এজন্য হোয়াটসঅ্যাপ একটি অপশনও চালু করেছে। খবর বিজনেস ইনসাইডারের

অ্যান্ড্রয়েড বা আইওএস, উভয় অপারেটিং সিস্টেমে চলা ফোনেই এই নতুন পরিবর্তনটি আনছে হোয়াটসঅ্যাপ। বর্তমানে সম্মতি জানানোর একটি অপশন আসছে । ৮ ফেব্রুয়ারি সম্মতি জানানোর শেষ তারিখ। সম্মতি দিলে তিনটি পরিবর্তনের কথা উল্লেখ করা হচ্ছে। এক. হোয়াটসঅ্যাপ পরিষেবা ও আপনার তথ্য আমরা যেভাবে ‘প্রসেস’ করি। দুই. ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো কিভাবে ফেসবুকের পরিষেবাগুলি ও হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট সংরক্ষণ ও ব্যবহার করতে পারবে। তিন. কিভাবে ফেসবুকের অন্যান্য প্রোডাক্টকে আমরা তথ্য সরবরাহ করি। 

হোয়াটসঅ্যাপ এবার সরাসরিই জানিয়ে দিচ্ছে, গ্রাহকদের নাম, ফোন নম্বর, ফোনের তথ্য, আইপি অ্যাড্রেস, গ্রাহকের বার্তা বিনিময়ের ধরন, লেনদেনের তথ্য এবং আরও কিছু তারা এবার থেকে ফেসবুকের সঙ্গে শেয়ার করবে। কখনও সরাসরি। কখনও অনুমতি নিয়ে।

হোয়াটসঅ্যাপের এমন কঠোর নীতির কারণে এটি বয়কটের ডাক দিয়েছেন বিভিন্ন বিখ্যাত ব্যক্তিরা। তারা হোয়াটাসঅ্যাপের পরিবর্তে টেলিগ্রাম বা সিগন্যাল অ্যাপ ব্যবহার করতে বলছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here