০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪

ফেসবুক রিলস থেকে আয়ের উপায়

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক:
  • আপডেট: ১২:৪০:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩
  • / ১০৩৭৩ বার দেখা হয়েছে

চীনা প্রতিষ্ঠান টিকটক ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠার পর তাদের পথ অনুসরণ করে ইউটিউব। নিজের প্লাটফর্মে ব্যবহারকারীদের ধরে রাখতে ছোট ভিডিও নিয়ে ইউটিউব চালু করে ‘শর্টস’। পিছিয়ে থাকতে নারাজ ফেসবুকেও। ছোট ভিডিও নিয়ে তাই তাদের আয়োজন ‘রিলস’।সময়ের সঙ্গে বাড়ছে মানুষের ব্যস্ততা, আর হয়তো সেই কারণেই বাড়ছে ছোট আকারের ভিডিওর জনপ্রিয়তাও।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুনফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

ইউটিউব ও ফেসবুক তাদের প্লাটফর্মে কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের উৎসাহিত করতে ‘মনিটাইজেশন’ চালু করেছে। এর মাধ্যমে ক্রিয়েটররা তাদের শর্টস ও রিলস থেকে অর্থ আয় করতে পারেন।

আয়ের সুযোগ থাকায় ফেসবুক ও ইউটিউবে নিয়মিতভাবে প্রচুর কনটেন্ট ক্রিয়েটর আসছেন এবং প্রচুর ভিডিও তৈরি করছেন এসব প্লাটফর্মের জন্য।

রিলস থেকে আয়

রিলস ক্রিয়েটরদের নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্যের ভিডিওতে মনিটাইজ করার সুযোগ দিচ্ছে ফেসবুক। স্বাভাবিকভাবে প্রচুর ক্রিয়েটর ভিডিও প্রকাশ করতে শুরু করেন এবং অর্থ আয়ও করতে থাকেন।

কিছুদিন আগ পর্যন্ত ফেসবুক রিলস থেকে আয় করার একমাত্র উপায় ছিল রিলস বোনাস প্রোগ্রাম। ফেসবুক তাদের ভিডিও ক্রিয়েটরদের উৎসাহিত করতে এই বোনাস প্রোগ্রাম চালু করে। ভিডিও ভিউ, এনগেজমেন্টস, শেয়ারসহ কয়েকটি ক্ষেত্রে ফেসবুকের বেধে দেওয়া টার্গেট পূরণের মাধ্যমে রিলস ক্রিয়েটররা এই বোনাসটি পেত।

ফেসবুকের এই বোনাস প্রোগ্রাম ছিল ‘ফেসবুক ইনভাইট অনলি’ অফার। অর্থাৎ ফেসবুক অথরিটি ক্রিয়েটরের পেজ পারফরমেন্স, ভিডিও কোয়ালিটি ও দর্শকের আগ্রহের ওপর নির্ভর করে ক্রিয়েটরকে বোনাস প্রোগ্রাম অফার করতো।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের নামে আর্জেন্টিনায় ফুটবল ক্লাব

রিলস থেকে আয় করতে যেসব বিষয় মানতে হবে

ফেসবুকে সাধারণ ভিডিও ও রিলস ভিডিওর মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ভিডিওর দৈর্ঘ্য। রিলস ভিডিওর দৈর্ঘ্য হতে হবে সর্বোচ্চ ৯০ সেকেন্ড এবং ভিডিও হতে হবে ভার্টিক্যাল বা লম্বালম্বি।

রিলস মনিটাইজেশন করতে পেজ বা প্রফেশনাল মুডের আইডিতে অন্তত ৫ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে; ৫টি ইউনিক ভিডিও থাকতে হবে, যা আপনিই প্রথম আপলোড করেছেন এবং শেষ ২ মাস বা ৬০ দিনে ৬০ হাজার মিনিট ওয়াচটাইম থাকতে হবে। । জেনে রাখা ভালো, অন্যের ভিডিও দিয়ে আপনি মনিটাইজেশন করতে পারবেন না।

এসব শর্ত পূরণ হওয়ার পর রিলস মনিটাইজেশন করার জন্য আবেদন করতে পারবেন। ফেসবুক আপনার পেজ ও পার্টনার মনিটাইজেশন পলিসি এবং কনটেন্ট মনিটাইজেশন পলিসি রিভিউ করবে। সব ঠিক থাকলে মেটা বিজনেস স্যুট, প্রফেশনাল ড্যাশবোর্ডে অথবা ইমেইলের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে আপনার কাঙ্ক্ষিত বার্তাটি।

আপনার আবেদন একবার অনুমোদন পেয়ে গেলে রিলস থেকে আয় করতে পারবেন।

রিলসে যেসব বিজ্ঞাপন পাওয়া যাবে

ফেসবুক স্টার: সাধারণ ব্যবহারকারীরা ক্রিয়েটরদের রিলস ভিডিওতে স্টার দিতে পারবেন। ক্রিয়েটররা এসব স্টার ফেসবুকের কাছে বিক্রি করতে পারে।

ওভার লে অ্যাড: রিলস ট্যাব থেকে কোনো রিলস চালু করলে, ভিডিও চালু হওয়ার আগে যে বিজ্ঞাপনটি দেখা যায়, সেটি ওভার লে অ্যাড।

পোস্ট-লুপ অ্যাড: একটি রিলস দেখা শেষে স্ক্রল করার পর আরেকটি রিলস চালু হওয়ার আগে ২ রিলসের মাঝে যে অ্যাড দেখানো হয়, সেটি পোস্ট-লুপ অ্যাড।

ঢাকা/এসএম

শেয়ার করুন

x

ফেসবুক রিলস থেকে আয়ের উপায়

আপডেট: ১২:৪০:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩

চীনা প্রতিষ্ঠান টিকটক ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠার পর তাদের পথ অনুসরণ করে ইউটিউব। নিজের প্লাটফর্মে ব্যবহারকারীদের ধরে রাখতে ছোট ভিডিও নিয়ে ইউটিউব চালু করে ‘শর্টস’। পিছিয়ে থাকতে নারাজ ফেসবুকেও। ছোট ভিডিও নিয়ে তাই তাদের আয়োজন ‘রিলস’।সময়ের সঙ্গে বাড়ছে মানুষের ব্যস্ততা, আর হয়তো সেই কারণেই বাড়ছে ছোট আকারের ভিডিওর জনপ্রিয়তাও।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুনফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

ইউটিউব ও ফেসবুক তাদের প্লাটফর্মে কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের উৎসাহিত করতে ‘মনিটাইজেশন’ চালু করেছে। এর মাধ্যমে ক্রিয়েটররা তাদের শর্টস ও রিলস থেকে অর্থ আয় করতে পারেন।

আয়ের সুযোগ থাকায় ফেসবুক ও ইউটিউবে নিয়মিতভাবে প্রচুর কনটেন্ট ক্রিয়েটর আসছেন এবং প্রচুর ভিডিও তৈরি করছেন এসব প্লাটফর্মের জন্য।

রিলস থেকে আয়

রিলস ক্রিয়েটরদের নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্যের ভিডিওতে মনিটাইজ করার সুযোগ দিচ্ছে ফেসবুক। স্বাভাবিকভাবে প্রচুর ক্রিয়েটর ভিডিও প্রকাশ করতে শুরু করেন এবং অর্থ আয়ও করতে থাকেন।

কিছুদিন আগ পর্যন্ত ফেসবুক রিলস থেকে আয় করার একমাত্র উপায় ছিল রিলস বোনাস প্রোগ্রাম। ফেসবুক তাদের ভিডিও ক্রিয়েটরদের উৎসাহিত করতে এই বোনাস প্রোগ্রাম চালু করে। ভিডিও ভিউ, এনগেজমেন্টস, শেয়ারসহ কয়েকটি ক্ষেত্রে ফেসবুকের বেধে দেওয়া টার্গেট পূরণের মাধ্যমে রিলস ক্রিয়েটররা এই বোনাসটি পেত।

ফেসবুকের এই বোনাস প্রোগ্রাম ছিল ‘ফেসবুক ইনভাইট অনলি’ অফার। অর্থাৎ ফেসবুক অথরিটি ক্রিয়েটরের পেজ পারফরমেন্স, ভিডিও কোয়ালিটি ও দর্শকের আগ্রহের ওপর নির্ভর করে ক্রিয়েটরকে বোনাস প্রোগ্রাম অফার করতো।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের নামে আর্জেন্টিনায় ফুটবল ক্লাব

রিলস থেকে আয় করতে যেসব বিষয় মানতে হবে

ফেসবুকে সাধারণ ভিডিও ও রিলস ভিডিওর মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ভিডিওর দৈর্ঘ্য। রিলস ভিডিওর দৈর্ঘ্য হতে হবে সর্বোচ্চ ৯০ সেকেন্ড এবং ভিডিও হতে হবে ভার্টিক্যাল বা লম্বালম্বি।

রিলস মনিটাইজেশন করতে পেজ বা প্রফেশনাল মুডের আইডিতে অন্তত ৫ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে; ৫টি ইউনিক ভিডিও থাকতে হবে, যা আপনিই প্রথম আপলোড করেছেন এবং শেষ ২ মাস বা ৬০ দিনে ৬০ হাজার মিনিট ওয়াচটাইম থাকতে হবে। । জেনে রাখা ভালো, অন্যের ভিডিও দিয়ে আপনি মনিটাইজেশন করতে পারবেন না।

এসব শর্ত পূরণ হওয়ার পর রিলস মনিটাইজেশন করার জন্য আবেদন করতে পারবেন। ফেসবুক আপনার পেজ ও পার্টনার মনিটাইজেশন পলিসি এবং কনটেন্ট মনিটাইজেশন পলিসি রিভিউ করবে। সব ঠিক থাকলে মেটা বিজনেস স্যুট, প্রফেশনাল ড্যাশবোর্ডে অথবা ইমেইলের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে আপনার কাঙ্ক্ষিত বার্তাটি।

আপনার আবেদন একবার অনুমোদন পেয়ে গেলে রিলস থেকে আয় করতে পারবেন।

রিলসে যেসব বিজ্ঞাপন পাওয়া যাবে

ফেসবুক স্টার: সাধারণ ব্যবহারকারীরা ক্রিয়েটরদের রিলস ভিডিওতে স্টার দিতে পারবেন। ক্রিয়েটররা এসব স্টার ফেসবুকের কাছে বিক্রি করতে পারে।

ওভার লে অ্যাড: রিলস ট্যাব থেকে কোনো রিলস চালু করলে, ভিডিও চালু হওয়ার আগে যে বিজ্ঞাপনটি দেখা যায়, সেটি ওভার লে অ্যাড।

পোস্ট-লুপ অ্যাড: একটি রিলস দেখা শেষে স্ক্রল করার পর আরেকটি রিলস চালু হওয়ার আগে ২ রিলসের মাঝে যে অ্যাড দেখানো হয়, সেটি পোস্ট-লুপ অ্যাড।

ঢাকা/এসএম