১০:৩৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

বৃষ্টি উপেক্ষা করেই জড়ো হচ্ছেন কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীরা

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক:
  • আপডেট: ০৫:০১:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪
  • / ১০২০৮ বার দেখা হয়েছে

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে পূর্বঘোষিত ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালনের জন্য বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাতে ছাতা নিয়ে স্লোগানে স্লোগানে জড়ো হচ্ছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকেল ৩টার পর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে জড়ো হতে শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

‘কোটা নয় মেধা, মেধা মেধা’, ‘ভয় দেখিয়ে আন্দোলন, ‘মামলা করে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না’; পুলিশ দিয়ে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না’ — এসব স্লোগান দিতে দিতে জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি শুরু হওয়ার আগেই নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে তাড়াহুড়ো করতে দেখা যায় নগরবাসীর মধ্যে। রাজধানীর সড়কগুলোতেও বাড়তি যানবাহনের চাপ। রাজধানীর এয়ারপোর্ট রোড, বিশ্বরোড, বাড্ডা, রামপুরা, গুলশানে দেখা গেছে এই চিত্র।

গতকাল বুধবার সারাদিন রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে শিক্ষার্থীদের দিনব্যাপী ব্লকেডে কার্যত অচল হয়ে পড়ে পুরো ঢাকা। দিনভর এই অবরোধে ব্যাপক ভোগান্তির মুখে পড়ে বিভিন্ন প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হওয়া মানুষ। যানবাহনের অভাবে নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে  দুর্ভোগের শিকার হন তারা।

দিনভর অবরোধ কর্মসূচি পালনের পর বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে ফের ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচির ঘোষণা করে।

আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর সরকারি চাকরিতে ৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত কোটাপদ্ধতি বাতিল করে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। তখন সরকারি চাকরিতে (৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড) মুক্তিযোদ্ধা কোটা ছিল ৩০ শতাংশ। এছাড়া ১০ শতাংশ নারী, ১০ শতাংশ জেলা, ৫ শতাংশ ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী এবং ১ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা ছিল। সব মিলিয়ে ৫৬ শতাংশ।

আরও পড়ুন: মতিউর ও তার স্ত্রী-সন্তানদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

কোটা বাতিল করে সরকারের পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট করেন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর রুল দেন হাইকোর্ট। চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ৫ জুন রুল অ্যাবসলিউট (যথাযথ) ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট।

পরে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন চেম্বার আদালতে হয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে ৪ জুলাই। রিট আবেদনকারীপক্ষ সময় চেয়ে আরজি জানালে সেদিন আপিল বিভাগ শুনানি পিছিয়ে দেন। পাশাপাশি রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়। এ অবস্থায় কোটা পুনর্বহালসংক্রান্ত হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে গত মঙ্গলবার আবেদন করেন দুই শিক্ষার্থী।

দুই শিক্ষার্থী ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন শুনানির জন্য বুধবার (১০ জুলাই) আপিল বিভাগে ওঠে। শুনানি শেষে সরকারি চাকরিতে নিয়োগে কোটার বিষয়ে পক্ষগুলোকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে আদেশ দেন আপিল বিভাগ। কিছু পর্যবেক্ষণ, নির্দেশনাসহ এ আদেশ দেয়া হয়। এই স্থিতাবস্থা চার সপ্তাহের জন্য উল্লেখ করে আপিল বিভাগ আগামী ৭ আগস্ট পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

তবে আদালতের আদেশ প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’ এর নেতারা। বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকাল ৩টা থেকে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

ঢাকা/এসএইচ

ট্যাগঃ

শেয়ার করুন

x

বৃষ্টি উপেক্ষা করেই জড়ো হচ্ছেন কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীরা

আপডেট: ০৫:০১:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে পূর্বঘোষিত ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালনের জন্য বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাতে ছাতা নিয়ে স্লোগানে স্লোগানে জড়ো হচ্ছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকেল ৩টার পর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে জড়ো হতে শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

‘কোটা নয় মেধা, মেধা মেধা’, ‘ভয় দেখিয়ে আন্দোলন, ‘মামলা করে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না’; পুলিশ দিয়ে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না’ — এসব স্লোগান দিতে দিতে জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি শুরু হওয়ার আগেই নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে তাড়াহুড়ো করতে দেখা যায় নগরবাসীর মধ্যে। রাজধানীর সড়কগুলোতেও বাড়তি যানবাহনের চাপ। রাজধানীর এয়ারপোর্ট রোড, বিশ্বরোড, বাড্ডা, রামপুরা, গুলশানে দেখা গেছে এই চিত্র।

গতকাল বুধবার সারাদিন রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে শিক্ষার্থীদের দিনব্যাপী ব্লকেডে কার্যত অচল হয়ে পড়ে পুরো ঢাকা। দিনভর এই অবরোধে ব্যাপক ভোগান্তির মুখে পড়ে বিভিন্ন প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হওয়া মানুষ। যানবাহনের অভাবে নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে  দুর্ভোগের শিকার হন তারা।

দিনভর অবরোধ কর্মসূচি পালনের পর বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে ফের ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচির ঘোষণা করে।

আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর সরকারি চাকরিতে ৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত কোটাপদ্ধতি বাতিল করে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। তখন সরকারি চাকরিতে (৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড) মুক্তিযোদ্ধা কোটা ছিল ৩০ শতাংশ। এছাড়া ১০ শতাংশ নারী, ১০ শতাংশ জেলা, ৫ শতাংশ ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী এবং ১ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা ছিল। সব মিলিয়ে ৫৬ শতাংশ।

আরও পড়ুন: মতিউর ও তার স্ত্রী-সন্তানদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

কোটা বাতিল করে সরকারের পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট করেন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর রুল দেন হাইকোর্ট। চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ৫ জুন রুল অ্যাবসলিউট (যথাযথ) ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট।

পরে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন চেম্বার আদালতে হয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে ৪ জুলাই। রিট আবেদনকারীপক্ষ সময় চেয়ে আরজি জানালে সেদিন আপিল বিভাগ শুনানি পিছিয়ে দেন। পাশাপাশি রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়। এ অবস্থায় কোটা পুনর্বহালসংক্রান্ত হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে গত মঙ্গলবার আবেদন করেন দুই শিক্ষার্থী।

দুই শিক্ষার্থী ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন শুনানির জন্য বুধবার (১০ জুলাই) আপিল বিভাগে ওঠে। শুনানি শেষে সরকারি চাকরিতে নিয়োগে কোটার বিষয়ে পক্ষগুলোকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে আদেশ দেন আপিল বিভাগ। কিছু পর্যবেক্ষণ, নির্দেশনাসহ এ আদেশ দেয়া হয়। এই স্থিতাবস্থা চার সপ্তাহের জন্য উল্লেখ করে আপিল বিভাগ আগামী ৭ আগস্ট পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

তবে আদালতের আদেশ প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’ এর নেতারা। বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকাল ৩টা থেকে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

ঢাকা/এসএইচ