দেশের ব্যাংকগুলোতে ফের সাইবার হামলার আশঙ্কায় সতর্কতা জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে অনলাইন লেনদেন ও এটিএম বুথে নজরদারি বাড়িয়েছে ব্যাংকগুলো। বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এ নিয়ে ব্যাংকগুলোকে চিঠি দেয়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়াভিত্তিক হ্যাকার গ্রুপ ‘বিগল বয়েজ’ ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির সঙ্গে জড়িত ছিল। তারা আবার বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা উত্তোলন ও সুইফট নেটওয়ার্কে হামলা করতে পারে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আগস্ট মাসের মাঝামাঝিতে তথ্য আসে, ‘বিগল বয়েজ’ নামে একটি হ্যাকার গ্রুপ ব্যাংকগুলোতে সাইবার হামলা চালাতে পারে। গ্রুপটি উত্তর কোরিয়ার বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে জানানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৭ আগস্ট ব্যাংকগুলোকে সতর্ক থাকার জন্য চিঠি দেয়।

চিঠি পাওয়ার পর দেশের সব ব্যাংকই বিশেষ ব্যবস্থা নেয়। তবে এখন্ব পর্যন্ত কোনো হামলার কোনও ঘটনা ঘটেনি। তবে এই গ্রুপই নতুন করে হামলা চালাতে পারে বলে তথ্য এসেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই ব্যবস্থা নিয়েছে ব্যাংকগুলো।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শামস উল ইসলাম বলেন, নির্দেশনা পাওয়ার পর পরই আমরা নিরাপত্তা বাড়িয়েছি। প্রয়োজনীয় সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তবে সরকারের কম্পিউটার ইনসিডেন্ড রেসপন্স টিম-সার্ট এর প্রকল্প পরিচালক তারেক এম বরকতউল্লাহ বলেন, সাইবার হামলার আশঙ্কার কোনো তথ্য এখনও আমাদের কাছে আসেনি। ‘কোস্টারিক্টো’ হ্যাকার গ্রুপের বিষয়ে আমাদের কাছে একটি এলার্ট এসেছে। এই এলার্টটি আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, তবে এটি সাইবার হামলার আশঙ্কার মতো কোনো বিষয় নয়। এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। এটা নিয়মিত সতর্ক থাকার থাকার মতোই একটি এলার্ট।

এদিকে এমন পরিস্থিতিতে অনলাইন লেনদেন ব্যবস্থা এবং এটিএম বুথে নজরদারি বাড়িয়েছে ব্যাংকগুলো। দুই-একটি ব্যাংক ইতোমধ্যে রাতে এটিএম বুথ বন্ধ রাখা শুরু করেছে। রাষ্ট্রায়ত্ত রুপালী ব্যাংক শনিবার রাত ১১টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত এটিএম বুথ বন্ধ করে দিয়েছে। গ্রাহকদের এসএমএস দিয়ে এ তথ্য জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।