মহামারি করোনার তাণ্ডব যেন থামছেই না। টানা কয়েকমাস বাংলাদেশসহ বিশ্বের অধিকাংশ দেশে করোনার প্রকোপ কিছুটা কমলেও ফের হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে সংক্রমণ ও মৃত্যু। বিগত বেশ কিছুদিন ধরে দেশে করোনা রোগী শনাক্তের হার উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। সবশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত বেড়েছে, যা গত নয় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এ সময় করোনায় মৃত্যুও বেড়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে তিন হাজার ৫৬৭ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আগের সাত দিনে দেশে যথাক্রমে ৩৫৫৪, ২৮০৯, ২১৭২, ১৮৬৮, ১৮৯৯, ২১৮৭ ও ১৮৬৫ জন রোগী শনাক্ত হয়।সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে নভেল করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৮০ হাজার ৮০৮ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মোট ২৭ হাজার ৫০২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর পরীক্ষাকৃত এসব নমুনার ১২ দশমিক ৯৭ শতাংশের মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। গতকাল দেশে ২৫ হাজার ৯৫৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট ৪৪ লাখ ৮৭ হাজার ৬৮৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর মোট পরীক্ষার ১২ দশমিক ৯৪ শতাংশ পজিটিভ।

আজ বুধবার (২৪ মার্চ) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।


একনজরে দেশের করোনার চিত্র

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন: ৩৫৬৭ জন

মোট আক্রান্তের সংখ্যা: ৫৮০৮০৮ জন

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে: ২৫ জনের

মোট মৃত্যু হয়েছে: ৮৭৬৩ জনের

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন: ১৯১৫ জন

মোট সুস্থ হয়েছেন: ৫২৯৯০৯ জন


গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৫ জন মারা গেছেন। গত বছরের ৩০ জুন দেশে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এরপর ২৬ জুলাই ও ২৬ আগস্ট দেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৪ জনের মৃত্যু হয়। এর আগে গত ১৬ জুন করোনায় মারা যান ৫৩ জন।গত সাত দিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন যথাক্রমে ১৮, ৩০, ২২, ২৬, ১৮, ১৬ ও ১১ জন।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে আট হাজার ৭৬৩ জনে। মোট শনাক্তকৃত রোগীর বিপরীতে মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫১ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও এক হাজার ৯১৫ জন সুস্থ হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে মোট সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ ২৯ হাজার ৯০৯ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯০ দশমিক ৮৯ শতাংশ।