করোনা সংক্রমণ রোধে সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে সরকার সাতদিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করেছে। এই সাতদিন এসএমএস, অনলাইন ও অন্যান্য মাধ্যমে পুরোদমে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সেবা পাওয়া যাবে। তবে অফিসিয়াল কার্যক্রম সীমিত পরিসরে চলবে বলে জানিয়েছেন এনআইডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

কর্মকর্তারা জানান, করোনার এই সংকটময় পরিস্থিতিতে এনআইডি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে অনলাইন সেবা চালু করেছে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। অনলাইনের এই সেবা পেতে ভোটারকে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। বিধিনিষেধের এই সময়ে এসএমএস, অনলাইন ও অন্যান্য মাধ্যমে সেবা চলমান আছে। যে সেবাগুলো পাওয়া যাবে সেগুলো হল- জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি সংগ্রহ (ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছেন কিন্তু এনআইডি কার্ড পাননি), জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর সংগ্রহ, জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন, হারানো জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন, নতুন ভোটার নিবন্ধন ও এসএমএস সেবা।

যারা ভোটার হয়েছেন কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পাননি, তারা অনলাইনে নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে এনআইডির কপি সংগ্রহ করতে পারবেন। সরকারি বিধিনিধিষেধ উঠে গেলে পরবর্তী সময়ে মূল কপি পাবেন। মোবাইলের এসএমএসের মাধ্যমে এনআইডি নম্বর পাওয়ার পদ্ধতি : nid<formNo><dd-mm-yyyy> লিখে 105-এ পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে এনআইডি নম্বর প্রেরণ করা হবে। উদাহরণ : 105 এ প্রেরণ করুন nid <Form No><dd-mm-yyyy> nid XXXXXXX 24-08-1992

তবে যারা কার্ড পাননি তারা তাদের নিবন্ধন ফরম নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করবেন। পরে বায়োমেট্রিক যাচাই শেষে এনআইডি কপি বা নম্বর পাবেন তারা। তবে দ্বৈত ভোটার হলে এনআইডি কপি বা নম্বর পাওয়া যাবে না। যারা রেজিস্ট্রেশন করেছেন কিন্তু এনআইডি কার্ড পাননি তারা ওয়েবসাইটে ‘অন্যান্য তথ্যের’ ট্যাবে গিয়ে এনআইডি নম্বর লিংকে ফর্ম নম্বর ও DOB (জন্মতারিখ) দিলে আবেদনকারীর এনআইডি নম্বর পাবেন।

যারা এনআইডি নম্বর পেয়েছেন তারা অনলাইন পোর্টালে এনআইডির তথ্য ও মোবাইল নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে লগইন করতে পারবেন। লগইনের এর পর আবেদনকারী ফরমের এন্ট্রিকৃত সকল ডাটা দেখতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশনকৃত ব্যক্তি যদি পূর্বে কার্ড না পেয়ে থাকেন তিনি চাইলে পোর্টাল থেকে এনআইডি কপি সংগ্রহ করতে পারবেন।

কোনো ব্যক্তি যদি জাতীয় পরিচয়পত্র হারিয়ে ফেলেন, অথবা সংশোধন করতে চান তবে তিনি প্রয়োজনীয় দলিলাদি সংযুক্ত করে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনকারী অনলাইনে এনআইডি কার্ডের আবেদনের বর্তমান অবস্থান জানতে পারবেন। আবেদন অনুমোদিত হলে আবেদনকারী এসএমএস পাবেন এবং পোর্টাল থেকে পুনরায় এনআইডি কপি সংগ্রহ করতে পারবেন।

যে সব যোগ্য নাগরিক ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হননি, তারা অনলাইনে ঠিকানায় ভোটার নতুন নিবন্ধনের আবেদন করে রাখতে পারবেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সংশ্লিষ্ট থানা, উপজেলা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে এসে বায়োমেট্রিক দিয়ে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করবেন। পরবর্তীতে তাদের আবেদন যাচাই-বাছাই করে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে ও জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে।

বিজনেসজার্নাল/ঢাকা/এসএ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here