জি বাংলার ‘সারেগামাপা’ প্রতিয়োগিতা দিয়ে দুই বাংলায় জনপ্রিয়তা পান মাঈনুল আহসান নোবেল। সব কিছু ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু মাঝে কিছু বিতর্কিত কথাবার্তা বলে সমালোচনার মুখে পড়েন এই গায়ক। সমালোচনা এতটাই জোরালো হয় যে নোবেলের ক্যারিয়ারই পড়ে যায় হুমকির মুখে! 

তবে সেই সমালোচনা আর খারাপ সময়কে পেছনে ফেলে ধীরে ধীরে নিজের হারানো জনপ্রিয়তা ফিরে পাচ্ছেন সাড়া জাগানো এই সংগীতশিল্পী। যার শুরুটা হয়েছিল ‘অভিনয়’ দিয়ে। গত বছরের ১২ নভেম্বর সাউন্ডটেক থেকে প্রকাশিত নোবেলের ওই গানটি শ্রোতারা দারুণভাবে গ্রহণ করেন। 

এরপর গত ১২ ফেব্রুয়ারি একই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আর একই গীতিকার-সুরকারের (আহমেদ রিজভী ও আহম্মেদ হুমায়ুন) সমন্বয়ে নোবেল প্রকাশ করেন নতুন গান ‘অসহায়’। এটির জন্যও শ্রোতাদের ইতিবাচক মন্তব্য পাচ্ছেন গায়ক। সেই ধারাবাহিকতায় আসছে ১২ মার্চ ‘মেহেরবান’ শিরোনামে আরেকটি গান প্রকাশের ইঙ্গিত দিলেন নোবেল। এটি হবে সুফি ঘরানার। এই ধরনের গানে তিনি আগে কণ্ঠ দেননি। 

নোবেল বলেন, ‘সুফি ঘরানার এই গানটিতে আল্লাহকে স্মরণ করা হয়েছে। অডিওর কাজ শেষ। ভিডিও হয়ে গেলেই প্রকাশ করা যাবে। তবে সব নির্ভর করছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ওপর।’ 

এই গানগুলোর ক্ষেত্রে দেখা যায় নোবেল বেছে নিচ্ছেন ১২ তারিখকেই! এর পেছনে রহস্য কী? গায়কের ভাষ্য, ‘প্রথম গানটি ১২ তারিখে বের করে সফল হয়েছি। দ্বিতীয়টির ক্ষেত্রেও তাই। সে কারণেই মনে হলো পরের গানটিও ১২ তারিখেই ছাড়ি।’ 

অডিওর পাশাপাশি স্টেজ শোতেও এখন নিয়মিত নোবেল। গত ভালোবাসা দিবসে একটি শোতে গেয়েছেন। চলতি মাসে আরও তিনটি শো থাকলেও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’-এর একটি থিম সং তৈরির জন্য সেসব শো বাতিল করেছেন বলে জানালেন। এছাড়া আগামী ১ ও ১১ মার্চ দুটি শোতে গাওয়ার কথা চূড়ান্ত হয়ে আছে তার।

‘ঢাকা পোস্ট’কে নোবেল বলেন, ‘মানুষ ভুল থেকেই শেখে। আমিও শিখছি। নিজের ভুলের কারণেই মানুষের সমালোচনার মুখে পড়েছি, গালি খেয়েছি। আমাকে ভালোবাসেন বলেই শ্রোতারা আমার ভুল আচরণগুলো মেনে নিতে পারেননি। শ্রোতাদের সেই গালিও ভালোবাসার অংশ।’ 

আরও যোগ করেন, ‘আমার বিষয়ে মানুষের ধারণা এখন বদলে যাচ্ছে। গান থেকে শুরু করে এখন জীবনযাপনেও পরিবর্তন এনেছি। ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে পথ চলছি। এভাবে চলতে থাকলে খুব দ্রতই সবাই আমাকে আগের মতো ভালোবাসতে শুরু করবে।’ 

 

আরও পড়ুন: