সেরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ২০ লাখ ডোজ করোনার টিকা আসছে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি। বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানিয়েছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, টিকা নেওয়ার পর শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, এমন কারও কথা আমরা শুনিনি। যে টিকাটি দেওয়া হচ্ছে, সেটি ভালো এবং সহনশীল বলে প্রমাণিত।

বয়স্কদের জন্য স্পট নিবন্ধনের ব্যবস্থা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, টিকাদান কেন্দ্রে ভিড় এড়াতে এবং সুষ্ঠুভাবে টিকাদান নিশ্চিতের স্পট নিবন্ধন বন্ধ রাখা হয়েছে। আপাতত এটি চালুর বিষয়ে ভাবা হচ্ছে না। তবে গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তি, যারা টিকাদান কেন্দ্রে আসতে পারছেন না, তাদের কাছে কিভাবে টিকা পৌঁছানো যায়, সে ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, করোনা টিকা পাওয়া থেকে কেউ বঞ্চিত হবে না। সারাদেশে লাখ লাখ মানুষ আনন্দের সঙ্গে উৎসবমুখর পরিবেশে টিকাদান কেন্দ্রে এসে করোনার টিকা নিচ্ছেন।

জাহিদ মালেক বলেন, শুরুর সাতদিনে রেজিস্ট্রেশন ছিল মাত্র ১৫ হাজার, পরবর্তীতে এ সংখ্যা প্রতিদিন বাড়ছে। সঙ্গত কারণেই টিকার ডেট পেতে দেরি হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি টিকা কেন্দ্রে নিবন্ধন সংখ্যা ও টিকাদানের কোটা রয়েছে। সে হিসাবে টিকা সরবরাহ, টিকা প্রদানকারীসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা রয়েছে। কোথাও বেশি মানুষ আসবে ভাবা হলেও কম লোক আসছে, আবার কোথাও কম আসবে ভাবা হলেও বেশি লোক আসছে। সেক্ষেত্রে প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর্মকর্তারা ভারসাম্য রক্ষা করার চেষ্টা করছেন।

সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ৩ কোটি ডোজ টিকা কিনেছে বাংলাদেশ। প্রতি মাসে ৫০ লাখ ডোজ করে টিকা আসার কথা রয়েছে, যার প্রথম চালান গত মাসে এসেছে। এ টিকা আনছে বাংলাদেশে সেরামের ‘এক্সক্লুসিভ ডিস্ট্রিবিউটর’ বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস।

 

আরও পড়ুন: