০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মার্চ ২০২৩

আর্থিক খাতে ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবহারে ঝুঁকিতে নিরাপত্তা

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক:
  • আপডেট: ০৬:৩১:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মার্চ ২০২৩
  • / ৪১২৩ বার দেখা হয়েছে

আর্থিক খাতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। বর্তমানে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে খাতটিতে ব্যবহার করা সিস্টেমগুলো পরিচালনায় তথ্য সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে উচ্চ গতির ইন্টারনেট ও ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমন পরিস্থিতির মধ্যে ক্লাউড কম্পিউটিং ইন্টারনেট নির্ভর হওয়ায় এতে সাইবার আক্রমণসহ তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি রয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত এক নির্দেশনা বাংলাদেশে কার্যরত সকল তফসিলি ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সিস্টেম অপারেটর এবং অন্যান্য আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়েছে।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউভ

নির্দেশনায় বলা হয়, চাহিদানুযায়ী সর্বোৎকৃষ্ট প্রযুক্তি ব্যবহার, ব্যয় সাশ্রয়, যেকোন সময় যেকোন স্থান হতে সিস্টেমে প্রবেশের সুযোগ, সিস্টেম ব্যবহারে নিরবিচ্ছিন্নতা এবং উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থার কারণে ক্লাউড সেবা গ্রহণের হারও প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে, ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ইন্টারনেট নির্ভর হওয়ায় এতে সাইবার আক্রমণসহ তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি রয়েছে। সামগ্রিকভাবে আর্থিক খাতে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার লক্ষ্যে ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের ঝুঁকি নিরূপণ ও কার্যকর তদারকি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এতে আরও বলা হয়, ক্লাউড সেবার ক্ষেত্র, ক্লাউড অবকাঠামো, ক্লাউড তথ্য ব্যবস্থাপনা, ক্লাউড প্রযুক্তির বাস্তবায়ন, ক্লাউড সেবা গ্রহণের শর্তগুলো ক্লাউড সেবা প্রদানকারীর সার্বিক ব্যবস্থাপনা, ক্লাউড গভর্নেন্স, ক্লাউড সেবা ব্যবহারের ঝুঁকি নিরূপণ, তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, ক্লাউড সংক্রান্ত নিরীক্ষা ও পরিপালন নিশ্চিতকরণ এবং সর্বোপরি ক্লাউড প্রযুক্তির বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও সচেতনতা বৃদ্ধি প্রভৃতি বিষয়কে সমন্বিত করে ক্লাউড কম্পিউটিং সংক্রান্ত নীতিমালা জারি করা হলো। একইসঙ্গে ক্লাউড কম্পিউটিং সংশ্লিষ্ট যেকোন কার্যক্রমের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা অনুসরণের জন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে আর্থিক খাতের সংস্থাটি।

ক্লাউড কম্পিউটিং সংক্রান্ত নীতিমালা অনুযায়ী, নির্দেশনার সার্বিক পরিপালন নিশ্চিত সাপেক্ষে ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সিস্টেম অপারেটর এবং অন্যান্য আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে পারবে।

আরও পড়ুন: সিএমএসএমই খাতে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

এদিকে বর্তমানে চলমান সকল ক্লাউড সেবা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এ নীতিমালার পরিপালন নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া ক্লাউড সেবা গ্রহণকারী ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান ব্যতিরেকে অন্যান্য ব্যাংকসহ সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে।

ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ এর ৪৫ ধারা এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন, ১৯৯৩ এর ১৮(ছ) ধারার ক্ষমতাবলে এ সার্কুলার জারি করা হলো।

ঢাকা/এসএ

শেয়ার করুন

English Version

আর্থিক খাতে ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবহারে ঝুঁকিতে নিরাপত্তা

আপডেট: ০৬:৩১:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মার্চ ২০২৩

আর্থিক খাতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। বর্তমানে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে খাতটিতে ব্যবহার করা সিস্টেমগুলো পরিচালনায় তথ্য সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে উচ্চ গতির ইন্টারনেট ও ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমন পরিস্থিতির মধ্যে ক্লাউড কম্পিউটিং ইন্টারনেট নির্ভর হওয়ায় এতে সাইবার আক্রমণসহ তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি রয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত এক নির্দেশনা বাংলাদেশে কার্যরত সকল তফসিলি ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সিস্টেম অপারেটর এবং অন্যান্য আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়েছে।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউভ

নির্দেশনায় বলা হয়, চাহিদানুযায়ী সর্বোৎকৃষ্ট প্রযুক্তি ব্যবহার, ব্যয় সাশ্রয়, যেকোন সময় যেকোন স্থান হতে সিস্টেমে প্রবেশের সুযোগ, সিস্টেম ব্যবহারে নিরবিচ্ছিন্নতা এবং উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থার কারণে ক্লাউড সেবা গ্রহণের হারও প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে, ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ইন্টারনেট নির্ভর হওয়ায় এতে সাইবার আক্রমণসহ তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি রয়েছে। সামগ্রিকভাবে আর্থিক খাতে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার লক্ষ্যে ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের ঝুঁকি নিরূপণ ও কার্যকর তদারকি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এতে আরও বলা হয়, ক্লাউড সেবার ক্ষেত্র, ক্লাউড অবকাঠামো, ক্লাউড তথ্য ব্যবস্থাপনা, ক্লাউড প্রযুক্তির বাস্তবায়ন, ক্লাউড সেবা গ্রহণের শর্তগুলো ক্লাউড সেবা প্রদানকারীর সার্বিক ব্যবস্থাপনা, ক্লাউড গভর্নেন্স, ক্লাউড সেবা ব্যবহারের ঝুঁকি নিরূপণ, তথ্যের গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, ক্লাউড সংক্রান্ত নিরীক্ষা ও পরিপালন নিশ্চিতকরণ এবং সর্বোপরি ক্লাউড প্রযুক্তির বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও সচেতনতা বৃদ্ধি প্রভৃতি বিষয়কে সমন্বিত করে ক্লাউড কম্পিউটিং সংক্রান্ত নীতিমালা জারি করা হলো। একইসঙ্গে ক্লাউড কম্পিউটিং সংশ্লিষ্ট যেকোন কার্যক্রমের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা অনুসরণের জন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে আর্থিক খাতের সংস্থাটি।

ক্লাউড কম্পিউটিং সংক্রান্ত নীতিমালা অনুযায়ী, নির্দেশনার সার্বিক পরিপালন নিশ্চিত সাপেক্ষে ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডার, পেমেন্ট সিস্টেম অপারেটর এবং অন্যান্য আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ক্লাউড কম্পিউটিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে পারবে।

আরও পড়ুন: সিএমএসএমই খাতে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

এদিকে বর্তমানে চলমান সকল ক্লাউড সেবা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এ নীতিমালার পরিপালন নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া ক্লাউড সেবা গ্রহণকারী ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান ব্যতিরেকে অন্যান্য ব্যাংকসহ সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে।

ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ এর ৪৫ ধারা এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন, ১৯৯৩ এর ১৮(ছ) ধারার ক্ষমতাবলে এ সার্কুলার জারি করা হলো।

ঢাকা/এসএ