০২:৩১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

কোন পদ্ধতিতে হবে ১৬ দলের কোপা?

বিজনেস জার্নাল প্রতিবেদক:
  • আপডেট: ০৭:৫১:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • / ৪১০৫ বার দেখা হয়েছে

দিনের হিসেবে ১০, এরপর মাঠে গড়াবে কোপা আমেরিকা কাপ। চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝেই যুক্তরাষ্ট্রে বসবে মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের এই আসর। দ্বিতীয়বারের মতো ১৬ দলের অংশগ্রহণে পর্দা উঠবে এবারের আসরের।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

এর আগে সর্বশেষ ২০২১ সালে হওয়া কোপায় অংশ নিয়েছিল ১০ দল। ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত সেই আসরে দুই গ্রুপে খেলেছিল ৫টি করে দল। প্রতিটি দল খেলে ৪টি করে ম্যাচ। গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়েছিল মাত্র দুটি দল।

দুই গ্রুপ থেকে বাকি আট দল জায়গা করে নেয় দ্বিতীয় রাউন্ডে বা কোয়ার্টার ফাইনালে। সেমিফাইনাল, ফাইনালে খেলে শিরোপা উৎসব করে আর্জেন্টিনা। রানার্স আপ হয় স্বাগতিক ব্রাজিল।

১৯৯৩ সালের আসর থেকে চালু হয় অতিথি দলের অংশগ্রহণ। সাধারণত দুটি দলকে আমন্ত্রণ জানানোর রেওয়াজ। তবে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের ১৬ দলের অংশগ্রহণে পর্দা উঠবে।

এবারও রেকর্ড সর্বোচ্চ ১৬ দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হবে কোপা আমেরিকার ৪৮তম আসর। এক গ্রুপে ৪টি দল আর চার গ্রুপের ১৬ দল। এভাবে হয়েছে কোপা আমেরিকার গ্রুপ বিন্যাস।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা

কোপা আমেরিকা গ্রুপ বিন্যাস

এ-গ্রুপ: আর্জেন্টিনা, কানাডা, চিলি, পেরু

বি-গ্রুপ: ইকুয়েডর, মেক্সিকো, জ্যামাইকা, ভেনিজুয়েলা

সি-গ্রুপ: যুক্তরাষ্ট্র, পানামা, উরুগুয়ে, বলিভিয়া

ডি-গ্রুপ: ব্রাজিল, প্যারাগুয়ে, কোস্টারিকা, কলম্বিয়া

প্রতিটি দল গ্রুপে থাকা বাকি তিন দলের সঙ্গে একবার করে ম্যাচ খেলবে। ফলে একটি দলকে ম্যাচ হবে ৩টি। গ্রুপ পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দুই দল যাবে পরের রাউন্ডে। ২০ জুন শুরু হয়ে গ্রুপ পর্ব চলবে ৩ জুলাই পর্যন্ত।

গ্রুপে জয়ের জন্য দলগুলো পাবে ৩ পয়েন্ট। আর ড্রয়ের জন্য থাকছে ১ পয়েন্ট। ড্র ছাপিয়ে শুধু জয় দেখতে চাইলে আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে নক আউট পর্ব পর্যন্ত। প্রতিটি গ্রুপ থেকে দুটি করে দল জায়গা পাবে পরের রাউন্ডের।

আট দল নিয়ে হবে কোয়ার্টার ফাইনাল। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ম্যাচের ফলাফল না এলে দুদলকে খেলতে হবে অতিরিক্ত ৩০ মিনিট। এর পর হবে পেনাল্টি শুট আউট বা টাইব্রেক। সেমি ফাইনাল ও ফাইনালেও থাকবে এ নিয়ম।

শেষ আটের প্রতিদ্বন্দ্বী নির্ধারিত হবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বনাম গ্রুপ রানার্সআপের মধ্যে। এ-গ্রুপ খেলবে বি-গ্রুপের বিপক্ষে। আর সি-গ্রুপের দলগুলো লড়বে ডি-গ্রুপের সঙ্গে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, ধরুন এ-গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আর্জেন্টিনা আর রানার্স আপ চিলি। আর বি-গ্রুপের শীর্ষে ইকুয়েডর আর দ্বিতীয় দল হয়েছে মেক্সিকো।

তাহলে কোয়ার্টার ফাইনালের লাইন আপ হবে আর্জেন্টিনা-মেক্সিকো এবং চিলি-ইকুয়েডর। একই ভাবে সি ও ডি গ্রুপের দলগুলো নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের লাইন আপ।

এরপর চার দলের সেমিফাইনাল। তৃতীয়-চতুর্থ স্থান নির্ধারণীর পর আগামী ১৪ জুলাই হবে মেগা ফাইনাল। সেদিন নির্ধারিত হবে ৪৮তম আসরের শিরোপাজয়ী।

ঢাকা/এসএইচ

শেয়ার করুন

x

কোন পদ্ধতিতে হবে ১৬ দলের কোপা?

আপডেট: ০৭:৫১:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

দিনের হিসেবে ১০, এরপর মাঠে গড়াবে কোপা আমেরিকা কাপ। চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝেই যুক্তরাষ্ট্রে বসবে মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের এই আসর। দ্বিতীয়বারের মতো ১৬ দলের অংশগ্রহণে পর্দা উঠবে এবারের আসরের।

অর্থনীতি ও শেয়ারবাজারের গুরুত্বপূর্ন সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন: ফেসবুকটুইটারলিংকডইনইন্সটাগ্রামইউটিউব

এর আগে সর্বশেষ ২০২১ সালে হওয়া কোপায় অংশ নিয়েছিল ১০ দল। ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত সেই আসরে দুই গ্রুপে খেলেছিল ৫টি করে দল। প্রতিটি দল খেলে ৪টি করে ম্যাচ। গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়েছিল মাত্র দুটি দল।

দুই গ্রুপ থেকে বাকি আট দল জায়গা করে নেয় দ্বিতীয় রাউন্ডে বা কোয়ার্টার ফাইনালে। সেমিফাইনাল, ফাইনালে খেলে শিরোপা উৎসব করে আর্জেন্টিনা। রানার্স আপ হয় স্বাগতিক ব্রাজিল।

১৯৯৩ সালের আসর থেকে চালু হয় অতিথি দলের অংশগ্রহণ। সাধারণত দুটি দলকে আমন্ত্রণ জানানোর রেওয়াজ। তবে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের ১৬ দলের অংশগ্রহণে পর্দা উঠবে।

এবারও রেকর্ড সর্বোচ্চ ১৬ দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হবে কোপা আমেরিকার ৪৮তম আসর। এক গ্রুপে ৪টি দল আর চার গ্রুপের ১৬ দল। এভাবে হয়েছে কোপা আমেরিকার গ্রুপ বিন্যাস।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা

কোপা আমেরিকা গ্রুপ বিন্যাস

এ-গ্রুপ: আর্জেন্টিনা, কানাডা, চিলি, পেরু

বি-গ্রুপ: ইকুয়েডর, মেক্সিকো, জ্যামাইকা, ভেনিজুয়েলা

সি-গ্রুপ: যুক্তরাষ্ট্র, পানামা, উরুগুয়ে, বলিভিয়া

ডি-গ্রুপ: ব্রাজিল, প্যারাগুয়ে, কোস্টারিকা, কলম্বিয়া

প্রতিটি দল গ্রুপে থাকা বাকি তিন দলের সঙ্গে একবার করে ম্যাচ খেলবে। ফলে একটি দলকে ম্যাচ হবে ৩টি। গ্রুপ পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দুই দল যাবে পরের রাউন্ডে। ২০ জুন শুরু হয়ে গ্রুপ পর্ব চলবে ৩ জুলাই পর্যন্ত।

গ্রুপে জয়ের জন্য দলগুলো পাবে ৩ পয়েন্ট। আর ড্রয়ের জন্য থাকছে ১ পয়েন্ট। ড্র ছাপিয়ে শুধু জয় দেখতে চাইলে আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে নক আউট পর্ব পর্যন্ত। প্রতিটি গ্রুপ থেকে দুটি করে দল জায়গা পাবে পরের রাউন্ডের।

আট দল নিয়ে হবে কোয়ার্টার ফাইনাল। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ম্যাচের ফলাফল না এলে দুদলকে খেলতে হবে অতিরিক্ত ৩০ মিনিট। এর পর হবে পেনাল্টি শুট আউট বা টাইব্রেক। সেমি ফাইনাল ও ফাইনালেও থাকবে এ নিয়ম।

শেষ আটের প্রতিদ্বন্দ্বী নির্ধারিত হবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বনাম গ্রুপ রানার্সআপের মধ্যে। এ-গ্রুপ খেলবে বি-গ্রুপের বিপক্ষে। আর সি-গ্রুপের দলগুলো লড়বে ডি-গ্রুপের সঙ্গে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, ধরুন এ-গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আর্জেন্টিনা আর রানার্স আপ চিলি। আর বি-গ্রুপের শীর্ষে ইকুয়েডর আর দ্বিতীয় দল হয়েছে মেক্সিকো।

তাহলে কোয়ার্টার ফাইনালের লাইন আপ হবে আর্জেন্টিনা-মেক্সিকো এবং চিলি-ইকুয়েডর। একই ভাবে সি ও ডি গ্রুপের দলগুলো নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের লাইন আপ।

এরপর চার দলের সেমিফাইনাল। তৃতীয়-চতুর্থ স্থান নির্ধারণীর পর আগামী ১৪ জুলাই হবে মেগা ফাইনাল। সেদিন নির্ধারিত হবে ৪৮তম আসরের শিরোপাজয়ী।

ঢাকা/এসএইচ