যে সফর হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের অক্টোবরে, সেটা এখন হতে পারে ২০২১ সালের এপ্রিলে। বিসিবির বর্ষপঞ্জিকায় ওই একটি মাসই ফাঁকা রয়েছে। যেখানে শ্রীলঙ্কা খেলতে চায় দুই টেস্টের হোম সিরিজ। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের খেলা হওয়ায় শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) প্রস্তাবে বিসিবিও রাজি। সোমবার বিসিবি সিইও নিজামউদ্দিন চৌধুরী জানান, এসএলসির সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নিচ্ছেন তারা।

করোনাকালে শ্রীলঙ্কা সফর দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চেয়েছিল বাংলাদেশ; কিন্তু লঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও টাস্কফোর্স কোনোভাবেই ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে ছাড় দিতে রাজি হয়নি। একপর্যায়ে বাধ্য হয়ে সফর বাতিল করে বিসিবি। গত অক্টোবরে টাইগারদের লঙ্কা সফর না করা একদিক থেকে ভালোই হয়েছে। 

বিসিবি হোম সিরিজ আয়োজনের প্রস্তুতি নিতে পেরেছে দুটি টুর্নামেন্টের সফল আয়োজনের মধ্য দিয়ে। বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ ওয়ানডে টুর্নামেন্ট হয়েছে জাতীয় দল ও এইচপির পুলের ক্রিকেটারদের নিয়ে। নভেম্বর-ডিসেম্বরে হয়েছে পাঁচ দলের টি২০ টুর্নামেন্ট বঙ্গবন্ধু টি২০ কাপ। এ দুটি টুর্নামেন্ট আয়োজনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে জানুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজ খেলার সুযোগ করে দিচ্ছে ক্রিকেটারদের। নিউ নরমাল সময়ে শ্রীলঙ্কার টাস্কফোর্স ও আগের কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসেছে। দিমুথ করুনারত্নেরা টেস্ট খেলছেন। জানুয়ারিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই টেস্টের হোম সিরিজ খেলবে দেশটি। বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান জানান, ইংল্যান্ডের ক্রিকেটাররা যে প্রটোকল পাবেন একই সুবিধা দেওয়া হবে বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের।

করোনা-উত্তর বিশ্ব ক্রিকেটে কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) বায়োসিকিউর বাবল পরিকল্পনা অনুসরণ করছে বেশিরভাগ দেশ। সাত দিনের কোয়ারেন্টাইনে চতুর্থ দিন থেকে নিজেদের মধ্যে অনুশীলনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন করতে হলেও অনুশীলনের সুযোগ থাকছে। যেটা শ্রীলঙ্কার কাছে চেয়েও পায়নি বিসিবি। নিজামউদ্দিন চৌধুরীর কথায় বোঝা যাচ্ছে, আগের জটিলতাগুলো এবার থাকবে না, ‘আমাদের শ্রীলঙ্কা বোর্ডের সঙ্গে কথা হচ্ছে। প্রস্তাবটি ওদের কাছে থেকেই এসেছে। প্রথম স্পেলে আমাদের যখন আলোচনা হলেও সিরিজটি হয়নি। তবে আমরা একমত হয়েছিলাম টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার সঙ্গে টেস্ট সিরিজ খেলব। এ মুহূর্তে এপ্রিলকে টার্গেট করে এগোচ্ছি। ওই সময়ে দুই দলেরই স্পট রয়েছে।’ এপ্রিলে বাংলাদেশ খেলতে গেলে মে মাসে ঢাকায় খেলবে শ্রীলঙ্কা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here