করোনার রূপ বদলে চোখ রাঙাচ্ছে এখনও। এর ওপর চাপ বাড়িয়েছে বার্ড ফ্লু। হঠাৎ কাকের মৃত্যুতে ভারতবাসীর নজরে আসে গোটা বিষয়টি। কেরালা, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, হিমাচল প্রদেশে হাঁস, মুরগি, পাখির মৃত্যুতে নড়ে চড়ে বসেছে কেন্দ্র। জানা গেছে, মৃত পাখিদের শরীরে এইচ৫এন১ ভাইরাস মিলেছে। এই ভাইরাসের মারণ কোপে পাখিদের হচ্ছে শ্বাসকষ্ট, হু হু করে সংক্রমিত হচ্ছে একের পর এক পাখি। যার পর মৃত্যু হচ্ছে।

দেশের একাধিক রাজ্যে মুরগি, পায়রা ও পরিযায়ী পাখিদের মৃত্যুতে আতঙ্ক ছড়াতে সতর্কতা জারি করেছে কেন্দ্র। করোনার সঙ্গে এবার তাই সেইসব রাজ্যের প্রশাসন বার্ড ফ্লু’র সঙ্গে লড়াই করার জন্যও প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। চিকিৎসকরা বলছেন, Bird Flu-তে মানুষের আক্রান্ত হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। আর এই ভাইরাস মানুষের জন্যও প্রাণঘাতী হতে পারে। Human transmission হলে ভয়ংকর অসুস্থ হতে পারেন যে কোনও ব্যক্তি।

এই পরিস্থিতিতে বারবার একটাই প্রশ্ন উঠছে। মুরগির মাংস আর ডিম খাওয়া কতটা নিরাপদ?‌ আতঙ্কে রাজ্যে বিভিন্ন জায়গায় মুরগির মাংস, ডিমের দাম কমেছে। কারণ, মনে করা হচ্ছে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আগেই যদি বিক্রি হয়ে যায় তাহলে লাভ হবে। পাশাপাশি কেউ ভয়ে কিনছেন না, সেক্ষেত্রেও ব্যবসায় সমস্যা হতে পারে।
 
এই নিয়ে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

• মুরগির মাংস বা ডিম ঠিকমতো রান্না করে খেলে কোনো সমস্যা নেই। রান্না করার সময় তাপমাত্রা হয় সাধারণত ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মাংসের সমস্ত অংশের তাপমাত্রা যদি ৭০ ডিগ্রিতে পৌঁছায়, তাহলে ভাইরাস আর বেঁচে থাকতে পারে না। 
• মাংস রান্নার আগে ভালো করে ধুয়ে নেওয়ারও পরামর্শ দিল হু।
• কাটা মরগি না কেনাই যথাযথ বলে জানিয়েছে  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। 
• পোলট্রিজাত পাখি হাতে নেওয়ার পর অন্তত ২০ সেকেন্ড গরম জলে হাত ধুয়েই রান্না করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্র-জিনিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here